শিলিগুড়িতে জলসংকট দূর করতে উদ্যোগী পুরনিগম

108

রাজগঞ্জ: শিলিগুড়ি শহরে পানীয় জলের সংকট দূর করতে উদ্যোগী হয়েছে পুরনিগমের প্রশাসকমণ্ডলী। ফুলবাড়ি থেকে শিলিগুড়ি শহরে পানীয় জল সরবরাহ করা হয়। কিন্তু চাহিদার তুলনায় জল সরবরাহ কম হওয়ায় কয়েক বছর থেকে শিলিগুড়ি শহরে পানীয় জলের সংকট দেখা দিয়েছে। গজলডোবায় মেগা জল প্রকল্প করার পরিকল্পনা থাকলেও তা সুদূরপ্রসারি। তাই আপাতত জলসংকট কিছুটা কমানো যায় কিনা, তা নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু করেছে পুরনিগম। মঙ্গলবার ফুলবাড়ি জল উত্তোলন কেন্দ্র এবং শোধনাগার পরিদর্শন করেন শিলিগুড়ি পুরনিগমের জল সরবরাহ বোর্ডের দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্য অলোক চক্রবর্তী।

২০০০ সাল থেকে ফুলবাড়ির ওই জল শিলিগুড়ি শহরে সরবরাহ করা হচ্ছে। কিন্তু জনসংখ্যা বৃদ্ধি ও চাহিদার তুলনায় জল সরবরাহ কম হওয়ায় কয়েক বছর থেকে শিলিগুড়ি শহরে পানীয় জলের সংকট দেখা দিয়েছে। জল সরবরাহ ব্যবস্থার সংস্কার করে কিছুটা সমাধান করতে হলে কয়েক দিন সরবরাহ বন্ধ রাখতে হবে। কিন্তু শহরে পানীয় জলের বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় সেই চেষ্টা করতে পারছে না পুরনিগম। তাই কিছু একটা সমাধান করা যায় কিনা, সেই বিষয়টি খতিয়ে দেখতে এদিন পুরোনিগম ও পিএইচইর বাস্তুকারদের নিয়ে ফুলবাড়ি জল প্রকল্প পরিদর্শন করেন পুরনিগমের সংশ্লিষ্ট বোর্ডের দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্য অলোক চক্রবর্তী।

- Advertisement -

জল উত্তোলন কেন্দ্র, শোধনাগার ও রিজার্ভার পরিদর্শনের পর অলোক চক্রবর্তী জানান, বাম আমলে জল প্রকল্পটি করা হয়েছিল। তারপর আর তেমনভাবে সংস্কার করা হয়নি। ব্যারেজের গেটে ভেসে আসা গাছের গুঁড়ি ও প্রচুর আবর্জনা জমে রয়েছে। ওই আবর্জনা পরিষ্কার সহ জল উত্তোলন কেন্দ্র সংস্কার করতে হলে সরবরাহ বন্ধ রাখতে হবে। কিন্তু শিলিগুড়ি শহরে পানীয় জলের বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় তা করা যাচ্ছে না। তবে শহরে ১৭টি ডিপ টিউবওয়েল বসানোর কাজ চলছে। তিনি জানান, তাঁদের মূলত উদ্দেশ্য গজলডোবায় মেগা জল প্রকল্প করার। তবে আপাতত শিলিগুড়ি শহরের জল সংকট কিছুটা লাঘব করা যায় কিনা, সেই চেষ্টা চলছে। কীভাবে সেটা করা সম্ভব, তা খতিয়ে দেখতে ফুলবাড়ি জল প্রকল্প পরিদর্শন করা হল। বিষয়টি নিয়ে বোর্ড মিটিংয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।