রায়গঞ্জে তৃণমূলকর্মীর গুলিবিদ্ধ দেহ উদ্ধারে জোরাল হচ্ছে খুনের অভিযোগ

173

রায়গঞ্জ: মঙ্গলকোটে তৃণমূল কংগ্রেস নেতাকে পিটেয়ে খুন করার অভিযোগ উঠেছিল বিজেপির বিরুদ্ধে। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার রায়গঞ্জের ঝোমঝুরিয়া থেকে উদ্ধার হল এক তৃণমূল কর্মীর গুলিবিদ্ধ দেহ। মৃতের নাম মহম্মদ আলি(৫৫)। রায়গঞ্জের শীতগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের কৃষ্ণমুড়ি গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন তিনি। এলাকায় তৃণমূল কর্মী হিসেবে বিশেষ পরিচিতি রয়েছে বলেই প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে। ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। অন্যদিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠানোর পাশাপাশি তদন্ত শুরু করেছে।

স্থানীয় সূত্রে খবর, বুধবার সকাল নাগাদ রায়গঞ্জ থানার অধীন ঝোমঝুরিয়া এলাকায় একটি ভুট্টা খেতে ওই তৃণমূলকর্মী মহম্মদ আলির মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়। তড়িঘড়ি খবর দেওয়া হয় পুলিশে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃতদেহ উদ্ধার করে। একইসঙ্গে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয় তাজা কার্তুজ। এরপরেই  ঘটনাস্থলে পৌঁছোয় ক্রাইম ব্রাঞ্চ ও গোয়েন্দা দপ্তরের কর্তারাও। এদিকে, তৃণমূল কর্মীর গুলিবিদ্ধ দেহ উদ্ধারের ঘটনায় খুনের অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে।

- Advertisement -

পুলিশ সূত্রে খবর, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। সমস্ত দিক খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ইতিমধ্যে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। পুলিশের তদন্তকারী এক কর্তা জানান, মৃতের শরীরে পাঁজরের দু’পাশে দুটি গুলির ক্ষতের চিহ্ন রয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে, জমি বিবাদের জেরে খুন হতে হয়েছে ওই ব্যক্তিকে। যদিও মৃত্যুর সঠিক কারণ জানতে জোর তদন্ত চলছে।

তৃণমূলের ব্লক সভাপতি তথা রায়গঞ্জ পঞ্চায়েত সমিতির সহ-সভাপতি মানস ঘোষ বলেন, ‘মহম্মদ আলি একজন সক্রিয় তৃণমূল কর্মী ছিলেন। কি কারণে তাঁকে খুন করা হল তা পুলিশকেতদন্ত করে দেখতে বলা হয়েছে।’