মুর্শিদাবাদ, ২৩ এপ্রিলঃ মঙ্গলবার তৃতীয় দফার নির্বাচনে ভোট শুরুর প্রথম থেকেই উত্তপ্ত মুর্শিদাবাদ। মুর্শিদাবাদ কেন্দ্রের একাধিক জায়গা থেকে উঠে আসে অশান্তির চেহারা। ভোটের শুরুতেই ডোমকলে তৃনমূল কাউন্সিলারের স্বামীকে খুনের চেষ্টা। অভিযোগের তির কংগ্রেস -সিপিএমের বিরুদ্ধে। ডোমকলে সকাল থেকে দফায় দফায় বোমাবাজির ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পড়ে ভোটাররা। অন্যদিকে হিতানপুরের ৫ ও ৬ নম্বর বুথের ঘটনায় পুলিশের লাঠিচার্জ দুষ্কৃতীদের উপর। বুথ সংলগ্ন এলাকায় দুষ্কৃতীদের বোমাবাজি। এলাকা থেকে উদ্ধার হয় একাধিক তাজা বোমা। পাশাপাশি সীমান্তবর্তী এলাকা রানীনগরে বুথের সামনে বোমাবাজির ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এলাকাজুড়ে। অপরদিকে ইসলামপুরে সিপিএম কর্মীকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠে তৃণমূল আশ্রীত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। আক্রান্ত কর্মী মুর্শিদাবাদ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিত্সাধীন। পাশাপাশি জঙ্গীপুরে সুতির হরিপুরে ভোটারদের সাথে পুলিশের বচসা। ঘটনায় আহত দুই শিশু সহ তিন জন। ডোমকল ছাড়াও বিক্ষিপ্ত অশান্তি জঙ্গীপুরে। সুতি বিধানসভার বাহাগলপুরে ২০/২১ নম্বর বুথে কংগ্রেসের এজেন্টদের ঢুকতে বাধা। দুই এজেন্টকে মারধোরের অভিযোগ। জঙ্গীপুর কেন্দ্রের বেশকিছু এলাকায় ভোট প্রক্রিয়া দেরিতে শুরু হলেও ভোট হয় শান্তিপূর্ণ। অপরদিকে হরিহরপাড়ার কুমরিপুরে ১০৫ নম্বর বুথে কংগ্রেস পোলিং এজেন্টকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর অভিযোগ ওঠে তৃনমূলের বিরুদ্ধে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে তৃণমূল। দিনের শেষে কংগ্রেস-তৃনমূল সংঘর্ষে মৃত্যু হয় এক কর্মীর। ঘটনায় আহত হয় আরো ৩ জন তৃণমূল কর্মী সহ এক কংগ্রেস সমর্থক। এদিন সকাল থেকে দফায় দফায় রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় জেলার ডোমকল, রানীনগর, ইসলামপুর সহ সুতির বিভিন্ন এলাকা। ঘটনায় রীতিমতো আতঙ্কিত হয়ে পড়ে ওই সমস্ত এলাকার সাধারণ ভোটাররা। কংগ্রেস কর্মী খুনের ঘটনায় তীব্র নিন্দা করেন কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরী। পুলিশের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন বহরমপুরের বিদায়ী সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরী। মঙ্গলবার বহরমপুরে জেলা কংগ্রেস কার্যালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে রানিতলার বালিগ্রামে পুনঃনির্বাচনের দাবি জানান তিনি। কংগ্রেসের তোলা অভিযোগকে সম্পূর্ণ অস্বীকার করে তৃণমূল। ভগবানগোলায় কংগ্রেস কর্মী খুনের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ইতিমধ্যে কয়েকজনকে আটক করেছে রানীতলা থানার পুলিশ। সব মিলিয়ে এদিন তৃতীয় দফার নির্বাচনে মুর্শিদাবাদের বিভিন্ন এলাকা থেকে দফায় দফায় উঠে আসে হিংসা-প্রতিহিংসার ছবি।