বোরখা পরে মন্দিরে মহিলা, স্বাগত জানালেন পুরোহিত

342

নয়াদিল্লি: যে দিল্লিতে দু’মাস আগেও সাম্প্রদায়িক হিংসার বলি হয়েছে বহু মানুষ, সেখানেই এখন সম্প্রীতির বাতাস বইছে। করোনা রুখতে জাত-পাত ভুলে লড়াইয়ে শামিল হচ্ছেন অনেকেই। যেভাবে মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সবাই কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে অংশ নিয়েছেন তাতে মনে হচ্ছে, করোনা সাম্প্রদায়িকতার পাঁচিল ভেঙে দিয়েছে। আর তাই বোরখা পরা মুসলিম মহিলা মন্দিরে ঢুকলে স্বাগত জানাচ্ছেন পুরোহিতরা।

পবিত্র রমজান মাসে রোজা রেখেছেন ৩২ বছর বয়সি ইমরানা সাইফি। তিনি তিন সন্তানের মা। দিল্লিতে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে তিনি সামনের সারিতে থেকে লড়ছেন। স্থানীয় আবাসিক কল্যাণ সংস্থার সরবরাহ করা জীবণুনাশক স্প্রে-ট্যাংক কাঁধে নিয়ে পথে নেমেছেন। রোজ জীবাণুনাশক ছড়াতে যাচ্ছেন মন্দির, মসজিদ ও গুরদোয়ারায়। আর প্রতিটি মন্দিরের পুরোহিত তাঁকে স্বাগত জানাচ্ছেন। মন্দিরে ভেতরেও প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে তাঁকে। উত্তর দিল্লির বিস্তীর্ণ এলাকার মন্দির, মসজিদ, গুরদোয়ারা জীবাণুমুক্ত করার চেষ্টা করছেন ইমরানা। আর তাঁর এই প্রচেষ্টাকে স্বাগত জানাচ্ছে সকলেই।

- Advertisement -

সপ্তম শ্রেণির পর আর পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি ইমরানার। কিন্তু বিচার-বুদ্ধিতে তিনি কোনও শিক্ষিত মানুষের থেকে কম নন। গত ফেব্রুয়ারি মাসে সাম্প্রদায়িক হিংসায় দিল্লি আক্রান্ত হওয়ার পরও তিনি মাঠে নেমে কাজ করেছিলেন। এবারও সঙ্গে তিনি তিনজন মহিলাকে নিয়ে করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধে নেমেছেন। জাফরাবাদ, মুস্তফাবাদ, চান্দবাগ, নেহরুবিহার, শিববিহার, বাবুনগর এলাকায় জীবাণুনাশক ছড়াচ্ছেন তাঁরা।