ট্র্যাক্টর চালকের রহস্যমৃত্যু ঘিরে গলসিতে তৃণমূল-বিজেপি তরজা

301

বর্ধমান: ট্র্যাক্টর নিয়ে আলু জমিতে চাষ দিতে গিয়ে রহস্যজনক মৃত্যু হল এক যুবকের। মৃতর নাম গোবিন্দ বিশ্বাস(২৮)। তাঁর বাড়ি পূর্ব বর্ধমানের গলসি থানার ভুঁড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের জুজুটি গ্রামে।

রবিবার রাতে জুজুটি গ্রাম লাগোয়া ঘোষ কামালপুর মাঠ থেকে উদ্ধার হয় পেশায় ট্র্যাক্টর চালক গোবিন্দ বিশ্বাসের নিথর দেহ। তাঁর নাভির নিচে আঘাতের চিহ্ন ছিল। চিকিৎসার জন্য পরিজনরা যুবককে নিয়ে রাতেই বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে যাচ্ছিলেন। কিন্তু পথে তাঁর মৃত্যু হয়। এই মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে সোমবার সকাল থেকে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে ভুঁড়ি অঞ্চলে।

- Advertisement -

গলসি থানার পুলিশ যুবকের মৃত্যুর ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ ট্র্যক্টর মালিকের ভাই মিহির বিশ্বাসকে আটক করেছে। তারই মধ্যে ট্র্যাক্টর চালক যুবকের মৃত্যু নিয়ে গলসিতে তুঙ্গে উঠেছে শাসক ও বিরোধীদের রাজনৈতিক তর্জা। এলাকার বিজেপিকর্মী অভিজিৎ সিকদার দাবি করেন, গোবিন্দ বিশ্বাস বিজেপির সমর্থক ছিল। মৃতর ছবি দিয়ে অভিজিৎ সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর মন্তব্য পোস্ট করেন। সেই পোস্টে অভিজিৎ লেখেন, “ বিজেপি করার অপরাধে তৃণমূলের গুণ্ডা বাহিনী নৃশংস ভাবে গলসি জেড়পি ২ ভুঁড়ি অঞ্চলের জুজুটি গ্রামের গোবিন্দ বিশ্বাসকে হত্যা করেছে।” যদিও এই পোস্ট নিয়ে শোরগোল পড়েযেতেই অভিজিৎ তা ডিলিট করে দেয়।

মৃতের ভাইপো কৌশিক বিশ্বাস বলেন, তাঁর কাকা গোবিন্দ বিশ্বাস বিপজ্জনক ভাবে ট্র্যাক্টর থেকে পড়ে গিয়েছিলেন। তার জেরেই এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। একই সঙ্গে কৌশিক জানিয়েছেন, তাঁর কাকা কোনও রাজনৈতিক দলের সমর্থক বা কর্মী কিছুই ছিলেন না। অহেতুক তাঁর কাকার মৃত্যু নিয়ে কেউ কেউ ঘৃণ্য রাজনীতি করতে চাইছে।

স্থানীয় পঞ্চায়েতের তৃণমূল সদস্য চানক্য রঞ্জন মন্ডল বলেন, গোবিন্দ নিরীহ মানুষ ছিলেন। তিনি কোনও রাজনৈতিক দলের সমর্থক ছিলেন না। যা ঘটেছে তা নিছকই দুর্ঘটনা। গলসি থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত করছে। অথচ সত্য না জেনে বিজেপি যুবকের মৃত্যু নিয়ে ঘৃণ্য রাজনীতি করছে।