Breaking News: নির্দল প্রার্থী হিসেবে ভোটে দাঁড়াচ্ছেন নান্টু পাল

166

শিলিগুড়ি: নির্দল প্রার্থী হিসেবে ভোটে দাঁড়াচ্ছেন নান্টু পাল। রবিবার এমনই ঘোষণা করেছেন তিনি। তৃণমূলের দাপুটে নেতা হিসেবে পরিচিতি নান্টুবাবু শিলিগুড়ির বিধানসভা নির্বাচন কমিটির চেয়ারম্যান তথা এসজেডিএ-র ভাইস চেয়ারম্যান। তিনি তৃণমূলের কাউন্সিলরও ছিলেন। বর্তমানে ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কো-অর্ডিনেটর পদে রয়েছেন। এদিকে, শনিবারই শিলিগুড়িতে এসেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। এদিন শহরে বিরাট মিছিল ও সভাও করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। দলনেত্রীর শিলিগুড়ি সফরের মাঝেই শহরের দাপুটে নেতার এমন ঘোষণায় যথেষ্ট অস্বস্তিতে ঘাসফুল শিবির।

ফেব্রুয়ারিতে শিলিগুড়িতে এসেছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেসময় তাঁর মেয়ের বিয়েতেও গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তাই অনেকে ভেবেছিলেন, এবার হয়তো শিলিগুড়িতে প্রার্থী হতে পারেন নান্টু পাল। কিন্তু তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা প্রকাশিত হতে দেখা যায়, দল শিলিগুড়ি বিধানসভা আসনে ওম প্রকাশ মিশ্রকে প্রার্থী করেছে। তারপরই সমস্যার সূত্রপাত।

- Advertisement -

ওম প্রকাশবাবুকে প্রার্থী করার পরই বেসুরো গাইতে শুরু করেন নান্টু পাল। তিনি জানান, এটা তিনি কিছুতেই মানতে পারছেন না। রবিবার দুপুরে অরূপ বিশ্বাস, গৌতম দেব নান্টুবাবুকে মৈনাকে ডাকেন। সেখানে তাঁদের মধ্যে কথা হয়। তাঁরা নান্টু বাবুকে বলেন, ‘তুমি এই মুহূর্তে অন্য দলে যেওনা।’ তখন নান্টুবাবু তাঁদের বলেন, ‘আমি অন্য দলে যাব কি না, সেটা পরে ঠিক করব। তবে নির্দল প্রার্থী হিসেবে ভোটে দাঁড়াচ্ছি।’

তাঁর বক্তব্য, ‘শিলিগুড়ির বাসিন্দা এমন কাউকেই এবার প্রার্থী করার দাবি ছিল। কিন্তু দল সেটা মানেনি। তাই নির্দল প্রার্থী হিসেবে ভোটে দাঁড়াব।’

উল্লেখ্য, তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হতেই বিভিন্ন জায়গায় অসন্তোষ দেখা গিয়েছে। ভাঙরে আরাবুল ইসলাম, জটু লাহিড়ী, সোনালী গুহর মতো নেতারা টিকিট না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। যার জেরে ভোটের মুখে কিছুটা ব্যাকফুটে শাসক দল। এবার নির্দল প্রার্থী হিসেবে ভোটে লড়ার কথা জানালেন নান্টু পাল। ড্যামেজ কন্ট্রোলে ঘাসফুল শিবির কী পদক্ষেপ নেয়, সেটাই এখন দেখার।