টেনিস সার্কিটে সূর্যোদয় ওসাকা যুগের

মেলবোর্ন : করোনা পরবর্তী যুগে টেনিসে বদলে গিয়েছে প্রায় সবকিছুই। এসেছে নতুনত্ব। এতকিছুর মধ্যে বদলাননি শুধু একজন। তিনি নাওমি ওসাকা।

২০২০-র ইউএস ওপেনে যে মেজাজে ফ্ল্যাশিং মিডোয় বিরাজ করেছিলেন, তা ধরে রেখেই শনিবার রড লেভার এরিনায় জিতলেন নিজের দ্বিতীয় অস্ট্রেলিয়ান ওপেন। ফাইনালে প্রতিপক্ষ জেনিফার ব্র্যাডিকে একপেশে লড়াইয়ে ৬-৪, ৬-৩-এ হারাতেই উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন। টেনিস কি তবে নতুন রানি পেয়ে গেল? প্রশ্নটা যে অমূলক নয়, সেটা মেলবোর্ন পার্কে প্রমাণ করলেন ওসাকা।

- Advertisement -

মাত্র ২৩ বছর বয়সে চার চারটে গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়। চারটেই আবার পছন্দের হার্ডকোর্টে। মরশুমের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের পাশাপাশি রেকর্ডের যেন বান ডেকেছে ওসাকাকে ঘিরে। প্রথম চারটে গ্র্যান্ড স্ল্যামের ফাইনালে উঠেই চ্যাম্পিয়ন। জায়গা করে নিলেন মনিকা সেলেস, রজার ফেডেরারের পাশে। একই কোর্টে চারটে গ্র্যান্ড স্ল্যামের নজিরেও রাফায়েল নাদালের পাশে বসে পড়লেন ওসাকা। হার্ডকোর্টের মেজর টুর্নামেন্টে জয়ের পরিসংখ্যান নাওমির পক্ষে ৩৩-২। প্রথম সেট জেতার নিরিখে গ্র্যান্ড স্ল্যামে জাপানি তারকার জয় ৪৫-১। যা কম আকর্ষণীয় নয়।

কোভিড পরিস্থিতিতে দীর্ঘকালীন লকডাউন। সেই স্থবির অবস্থা কাটিয়ে সেরা ছন্দে ফেরা সহজ ছিল না নাওমির জন্য। কাজটা সহজ হয়েছিল জাপানি তারকার কোচিং টিমের জন্য। ফাইনালে নামার আগে ট্রফি জিতে কোচ উইম ফিসেটকে উৎসর্গ করার শপথ নিয়েছিলেন। কথা রাখলেন নাওমি। পাশাপাশি পরাজিত ব্র্যাডির লড়াইকে কুর্নিশ জানিয়ে প্রশংসা কুড়োলেন মেলবোর্ন গ্যালারির।

প্রায় কোনও প্রস্তুতি ছাড়াই অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে খেলতে নেমেছিলেন ব্র্যাডি। সেখান থেকে ফাইনালে ওঠা। জেনিফারের উদ্দেশে ওসাকা বলেন, আমরা একে অপরের বিরুদ্ধে ইউএস ওপেনের সেমিফাইনালে খেলেছিলাম। সেখানে জিততে আমাকে যথেষ্ট পরিশ্রম করতে হয়েছিল। আজও তাই। আমি বিশ্বাস করি, এই দ্বৈরথ এখানেই শেষ নয়। আবারও দেখা হবে। আর ব্র্যাডি? খুব কাছে এসেও স্বপ্ন ছোঁয়া হল না। তবে ওসাকার খেলায় মুগ্ধ মার্কিন তারকা। বয়সে নাওমি দুবছরের ছোট হলেও জাপানি তারকার পারফরমেন্স অনুপ্রেরণাদায়ক হিসেবে মানছেন ২৫-এর ব্র্যাডি।

২০১৮-তে ইউএস ওপেন জয়ের পরের বছর প্রথম অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জিতেছিলেন নাওমি ওসাকা। ২০২১-এ তার পুনরাবৃত্তি ঘটালেন জাপানি তারকা। ফ্ল্যাশিং মিডোয় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পাশাপাশি বর্ণবিদ্বেষের প্রতিবাদী মুখ হয়েছিলেন। রড লেভার এরিনা খুঁজে পেল এক ভবিষ্যতের তারকাকে। ওসাকা নামটাই এখন অপার বিস্ময় টেনিস সার্কিটে।