এত বড় জন সমাবেশ দেখার সৌভাগ্য হয়নি, ব্রিগেড মঞ্চের ভাষণে মোদি

152

কলকাতা: কেন্দ্রীয় সরকারের পাখির চোখ এখন বাংলা। তবে ভোটের নির্ঘণ্ট ঘোষণার পর বাংলায় বিজেপির প্রচার কর্মসূচিকে একেবারে সপ্ত সুরে বেঁধে দিতে রবিবার ব্রিগেডে ‘হাই ভোল্টেজ’ জনসভায় আসেন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। রাজ্যে ‘বিজেপি হাওয়ার জোর’ বোঝাতে ভিড়ের নিরিখেও নয়া রেকর্ড তৈরির লক্ষ্য নিয়েছিল বঙ্গ বিজেপি নেতারা। সঙ্গে মঞ্চে বিভিন্ন চমক থাকছেও বলে বিজেপির তরফে দাবি করা হয়েছে।

এদিন ব্রিগেড মঞ্চ থেকে মোদি বলেন, ‘দিদির ওপর বাংলার মানুষ ভরসা করেছিল, কিন্তু দিদি বাংলার আশাভঙ্গ করেছে। অনেকে ভাবছে আজ ২ মে এসে গিয়েছে। আজ আসল পরিবর্তনের জন্যই এই জনসমুদ্র।’ তিনি বলেন, ‘বাংলার মানুষ সোনার বাংলা চায়। ভোটের জন্য আসিনি, সবসময় পাশে থাকার জন্য এসেছি। আপনাদের আশির্বাদ চাই।’

- Advertisement -

এদিন প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কাউকে কাজের জন্য বাইরে যেতে হবে না। ভারত শ্রেষ্ঠ আসন পুনরায় মহিলা-কৃষকদের উন্নয়নের জন্য কাজ করব। বাংলা এমন এক জায়গা যেখানে আন্তর্জাতিক সীমান্ত রয়েছে। আর দিদি সেই সীমান্ত ব্যবহার করে অনুপ্রবেশ করাচ্ছে। সবরকম অনুপ্রবেশকারীদের রোখা হবে। তোলাবাজি-কালোবাজারি-দালালি-সিন্ডিকেট রোখা হবে।’

কলকাতায় মোদি বলেন, ‘বাংলায় ভোটব্যাংকের রাজনীতি চলছে। কিন্তু বাংলা কখনও পরিবর্তনের আশা ছাড়েনি। আজ পরিবর্তনের আশায় বুক বেঁধে আছে বঙ্গবাসী। কথা দিলাম সব স্বপ্নপূরণ করব। কলকাতাকে সিটি অফ ফিউচার করব।’

এদিন সংযুক্ত মোর্চাকে আক্রমণ করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বামেরা সবসময় বলত, কংগ্রেসের কালো হাত ভেঙ্গে দাও গুঁড়িয়ে দাও। আজ সেই হাত কি করে এত পছন্দ হয়ে গেল? কংগ্রেস কা কালা হাত আজ ক্যাইসে গোরা হো গায়া? বাংলায় গণতন্ত্রের পুনঃপ্রতিষ্ঠা করব।’

এদিন মোদি নিমতাকাণ্ডের তীব্র সমালোচনা করে বলেন, ‘মায়েদের ওপর গলি-গলিতে আক্রমণ করা হচ্ছে। বাংলায় এমন কোনও স্থান বাকি নেই যেখানকার মা-বোনেরা কাঁদেনি। দিদির সরকার কমিশনবাজির সরকার; তা না হলে কলকাতা বিমানবন্দরের কাজ থুরিই স্তব্ধ হয়ে থাকে?’

‘স্কুটার চেপে তিনি প্রতিবাদ করলেন, অথচ সেই স্কুটার যে রাজ্যে তৈরি হল সেই রাজ্যকে শত্রু করে নিলেন?’ মুখ্যমন্ত্রীকে প্রশ্ন করেন প্রধানমন্ত্রী। এদিন তিনি আরও জিজ্ঞেস করেন, ‘দিদির ওই স্কুটার ভবানীপুর থেকে নন্দীগ্রাম কি করে ঘুরে গেল?’