নয়াদিল্লি, ১ ফেব্রুয়ারিঃ লোকসভা ভোটের আগে অন্তর্বর্তী বাজেটে বিজেপি সরকার যে জনমোহিনী পথে হাঁটবে, তার পূর্বাভাস দিয়েই রেখেছিলেন বিশেষজ্ঞরা। বাস্তবেও তাই হল। শুক্রবার বাজেট পেশ করতে উঠে গত চার বছরে বিজেপি সরকার কী কী কাজ করেছে, তার পরিসংখ্যানই তুলে ধরলেন ভারপ্রাপ্ত অর্থমন্ত্রী পীযুষ গয়াল। অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি অসুস্থ হয়ে বিদেশে চিকিৎসা করাতে যাওয়ায় এনডিএ সরকারের শেষ বাজেট পেশ করার দায়িত্ব পড়েছিল পীযুষের ওপর। বাজেট পেশের আগে মন্ত্রীসভার বৈঠক বসে। সেখানে বাজেট প্রস্তাব পাশ হয়ে যাওয়ার পরেই লোকসভায় তা পেশ করেন ভারপ্রাপ্ত অর্থমন্ত্রী। পীযুষ বলেন, দেশ বৃদ্ধির পথে এগোচ্ছে, নিয়ন্ত্রিত হয়েছে মুদ্রাস্ফীতি। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে মুদ্রাস্ফীতির হার মাত্র ২.১ শতাংশ। বিশ্বের অর্থনীতিতে এখন ষষ্ঠস্থানে রয়েছে ভারত। গত পাঁচ বছরে বিপুল প্রত্যক্ষ বিনিয়োগ হয়েছে দেশে। এছাড়া আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প সহ বিজেপি সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের সাফল্যের খতিয়ান তুলে ধরেন অর্থমন্ত্রী।

এরপরই বেশ কয়েকটি নতুন প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেন পীযুষ। তিনি বলেন, কৃষকদের সুবিধার জন্য প্রধানমন্ত্রী কিষাণ যোজনা আনা হবে। যে কৃষকদের ২ হেক্টর জমি আছে, তাঁদের বার্ষিক ৬ হাজার টাকা করে দেবে সরকার। তিন ধাপে ২ হাজার টাকা করে সরাসরি কৃষকদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে চলে যাবে। এছাড়া ছোটো ও ক্ষুদ্র চাষিদের জন্যও নূন্যতম সহায়ক মূল্য চালু করা হচ্ছে। ভারতে মৎসচাষের কথা মাথায় রেখে পৃথক মৎসদপ্তর গড়তে চলেছে কেন্দ্র। এছাড়া মৎসচাষিরাও এখন থেকে কিষাণ ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা পাবেন। অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের জন্য মেগা পেনশন যোজনার চালু করা হচ্ছে। এর জন্য মাসে ৩০০০ টাকা করে পেনশন দেওয়া হবে। কর্মরত শ্রমিকদের মৃত্যুতে মিলবে দ্বিগুণ পিএফ। বাজেটে গোরুদের জন্যও পৃথক টাকা বরাদ্দ করেছেন অর্থমন্ত্রী। এর জন্য চালু হচ্ছে কামধেনু যোজনা। এছাড়া রাষ্ট্রীয় গোকুল যোজনার জন্য ৭৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। আয়করের ঊর্দ্ধসীমাও বাড়ানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পীযুষ। ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয়করের ঊর্দ্ধসীমা বাড়ানো হয়েছে।