অনাস্থার তলবি সভাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত নকশালবাড়ি

212

নকশালবাড়ি, ৬ জুনঃ নকশালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের অনাস্থার তলবি সভাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল নকশালবাড়ি বাজার। বুধবার বেলা ১২টায় সভা হওয়ার কথা ছিল। সেইমতো তৃণমূল কংগ্রেসের কয়েকজন সেখানে উপস্থিত হলেও বামেদের কোনও প্রতিনিধি সেখানে উপস্থিত হননি। সভা না হওয়ায় প্রিসাইডিং অফিসার ফিরে যান। বামেদের দাবি, শাসক দলের সন্ত্রাসের জন্যই তারা সভায় উপস্থিত হতে পারেননি। যদিও এই অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি তৃণমূলের। অভিযোগ উঠছে, প্রিসাইডিং অফিসার নকশালবাড়ি থেকে ফিরে আসার সময় দুষ্কৃতীরা শূন্যে তিন রাউন্ড গুলিও চালায়। এপ্রসঙ্গে নকশালবাড়ির বিডিও বাপি ধর বলেন, ‘অনাস্থা সভার জন্য প্রিসাইডিং অফিসার সেখানে গিয়েছিলেন। তবে তিনি ফিরে এসেছেন। তাঁর রিপোর্টের ভিত্তিতে পরবর্তী পদক্ষেপ করা হবে।’

অন্যদিকে, সকাল থেকেই নকশালবাড়ি নাগরিক প্রতিবাদী মঞ্চের ব্যানারে আন্দোলনে নেমেছে স্থানীয় তৃণমূল নেতা কর্মীরা। এদিন সকাল থেকেই গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসের গেট বন্ধ করে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করেন তাঁরা। পাশাপাশি মঞ্চের সদস্যরা নকশালবাড়ি বাজারের মূল রাস্তা, গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে ঢোকার রাস্তা সহ বেশ কয়েকটি জায়গায় টায়ার জ্বালিয়ে দেন। ফলে এলাকায় আতঙ্ক ছড়ায়। অনেক ব্যবসায়ী দোকান বন্ধ করে দেন। এপ্রসঙ্গে নাগরিক মঞ্চের যুগ্ম আহ্বায়ক সুনীল ঘোষ বলেন, ‘দু’সপ্তাহের বেশি সময় ধরে প্রধান, উপপ্রধান গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে আসছেন না। তাই স্থানীয় বাসিন্দারা পরিসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এর প্রতিবাদেই এই আন্দোলন।’ তবে তলবি সভা ভেস্তে যাওযায় প্রশাসন পরবর্তি কি পদক্ষেপ করে সেদিকেই এখন নজর রাজনৈতিক মহলের।

- Advertisement -

সিপিএম-এর দার্জিলিং জেলার সাধারণ সম্পাদক জীবেশ সরকার বলেন, ‘নিয়ম অনুসারে একবছরের মধ্যে অনাস্থা সভা ডাকা যায় না। যদি তৃণমূলের কথায় দ্বিতীয়বার অনাস্থা সভা ডাকা হয় তাহলে আমরা হাইকোর্টে যাব।’

সংবাদদাতাঃ শুভঙ্কর চক্রবর্তী

ছবিঃ সৌরভ জোয়ারদার