অলিম্পিকে নেই ১০ হাজার স্বেচ্ছাসেবক

টোকিও : টোকিও অলিম্পিক থেকে সরে দাঁড়ালেন দশ হাজার স্বেচ্ছাসেবক। যার ফলে করোনাকালে অলিম্পিক করা নিয়ে আরও চাপের মুখে আয়োজকরা। অন্যদিকে, এই সময়ে অলিম্পিক করা নিয়ে সংসদীয় কমিটির কাছে নেতিবাচক মত জানিয়েছেন সেদেশের নামী সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ শিগেরু ওমি। ২৩ জুলাই থেকে অলিম্পিক শুরু।

অলিম্পিক সহ বিভিন্ন প্রথমসারীর প্রতিযোগিতায় মূলত স্বেচ্ছাসেবকদের উপরেই যাবতীয় দায়িত্ব থাকে। টোকিও অলিম্পিকে প্রায় ৮০ হাজার স্বেচ্ছাসেবক রাখার পরিকল্পনা ছিল আয়োজকদের। সেইমতো ২ লক্ষেরও বেশি আবেদনকারীর মধ্য দিয়ে তাদের বেঁছে নেওয়া হয়। তারমধ্যে ১০ হাজার স্বেচ্ছাসেবক নাম তুলে নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন আয়োজক কমিটির সিইও তোশিরা মুটো। তিনি বলেন, এভাবে নাম প্রত্যাহারের পেছনে করোনা সংক্রমণ অবশ্যই একটা বড় কারণ। এর আগে গত ফেব্রুয়ারিতে আয়োজক কমিটির প্রাক্তন প্রধান ইওশিরো মোরির নারীবিদ্বেষী মন্তব্যের জেরে ২০ দিনে হাজারেরও বেশি স্বেচ্ছাসেবক অলিম্পিক থেকে নাম তোলেন।

- Advertisement -

অন্যদিকে, করোনা সংক্রান্ত একটি সরকারি সাব-কমিটির প্রধান ওমির বক্তব্য, এই সময়ে গেমস আয়োজন করা স্বাভাবিক কাজ নয়। অলিম্পিক করতে হলে আয়োজকদের আরও বেশি দায়িত্বশীল আচরণ করতে হবে। ব্যবস্থাপনা আরও শক্তিশালী হওয়া প্রয়োজন। জাপানের নাগরিকদের একটা বড় অংশ করোনাকালে গেমস আয়োজনের বিরোধী। এ প্রসঙ্গে ওমি বলেন, গেমস থেকে সংক্রমণ ছড়ানোর সম্ভাবনা কমানোর জন্য কী পদক্ষেপ করা হচ্ছে আয়োজকরা তা প্রকাশ করুন। না হলে সাধারণ মানুষের ভয় কমবে না। সবমিলিয়ে শুরুর ৫০ দিন আগেও টোকিও অলিম্পিক নিয়ে বিতর্ক থাকার নাম নেই।