কঠিন ম্যাচের আগে দলকে বার্তা রিডের

টোকিও : অলিম্পিকে ভারতের সঙ্গে প্রথম সাক্ষাৎটা এখনও বিভীষিকা বেলজিয়ামের জন্য। ০-৯ গোলের বিশাল ব্যবধানে ইউরোপের দলটিকে উড়িয়ে দিয়েছিলেন ধ্যানচাঁদরা। এপরের চার সাক্ষাতে দুবার করে জিতেছে দুদল। যারমধ্যে ২০১২ ও ২০১৬ অলিম্পিকে শেষ হাসি হেসেছে বেলজিয়ানরা।

সাম্প্রতিক কালে আন্তর্জাতিক সাফল্যের বিচারে বেলজিয়ামের ধারে কাছে নেই ভারত। রিও অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ, ২০১৮ বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন দলটি চলতি বছর প্রো লিগেও চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। এমন কঠিন প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক সাফল্যই ভরসা ভারতের। শেষ পাঁচ সাক্ষাতে চারবার জিতেছে কোচ গ্রাহাম রিডের ছেলেরা। ২০১৯ সালে সেদেশে সফরে গিয়ে জয়ের হ্যাটট্রিক। এরপর ২০২০ সালের শুরুতে ভুবনেশ্বরে প্রো লিগের ম্যাচে জয়। পরের দিন ফিরতি ম্যাচে ভারত হারলেও অমিত রোহিদাসরা চোখে চোখ রেখে লড়েছিলেন। আর এই পাঁচ ম্যাচই হয়েছে রিড দায়িত্ব নেওয়ার পর।

- Advertisement -

মঙ্গলবারের সেমিফাইনালের আগে দলের উদ্দ্যেশ্যে বিশেষ বার্তা দিয়েছে কোচ রিড। তিনি বলেন, গ্রেট ব্রিটেনের বিরুদ্ধে আমরা দারুণ জয় পেয়েছি। বিশষেত আমাদের ডিফেন্স আর গোলরক্ষক (পিআর) শ্রীজেশ দুর্দান্ত খেলেছে। তবে সেসব অতীত। এবার সামনের দিকে তাকাতে হবে। কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে আমরা শিখেছি প্যাশন আর আবেগ এক নয়। মাঝে মাঝে আমরা আবেগী হয়ে পড়েছিলাম। কিন্তু আমাদের মাঠে ১১ জনকেই প্রয়োজন। কোয়ার্টারে আমরা দীর্ঘক্ষণ ১০ জনে খেলেছি। বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে জিততে গেলে এটা করা যাবে না।

ভারত অধিনায়ক মনপ্রীত সিং অবশ্য প্রতিপক্ষ নিয়ে সাবধানী। তাঁর কথায়, বেলজিয়াম ও অস্ট্রেলিয়া শেষ দেড়-দুবছরে বিশ্বের এক নম্বর জায়গাটা ধরে রেখেছে। ফলে ওরা কঠিন প্রতিপক্ষ, এই নিয়ে কোনও দ্বিমত নেই। কিন্তু আমাদেরও গত কয়েক বছরে ওদের বিরুদ্ধে ভালো ফল করার অভিজ্ঞতা আছে। আমাদের নিজেদের খেলার ওপর ফোকাস করতে হবে। দলের সকলে গত কয়েক ম্যাচে নিজেদের মানসিক কাঠিন্য দেখিয়েছে। ওরা নিজেদের প্রমান করেছে। সেমিফাইনালে বেলজিয়ামের বিরুদ্ধেও আমাদের তেমন কিছু করতে হবে।

রিও অলিম্পিকে ফাইনালে উঠেও সোনা পায়নি বেলজিয়াম। এবার সেই অধরা পদক জয়ের জন্য শুরু থেকে ঝাপিয়েছে তারা। কিন্তু ১৯৮০ সালের পর প্রথমবার ফাইনাল খেলার মুখে দাঁড়িয়ে থাকা ভারত তাঁদের সেই সুযোগ দিতে নারাজ। কারণ আর একটা ম্যাচ জিতলেই ৪১ বছর পর পদক পাবে ভারত।