অমানবিক মালদায় একঘরে করোনা সংক্রামিতের পরিবার

185

কল্লোল মজুমদার, মালদা : দুদিন আগেও যাঁরা প্রতিবেশী ছিলেন, আজ তাঁরাই যেন কেমন অচেনা মানুষ। দুঃসময়ে পাশে দাঁড়ানো তো দূর, বরং চূড়ান্ত অমানবিকতার পরিচয় দিচ্ছেন।

মণ্ডল পরিবারের চার সদস্যই সংক্রামিত হয়েছেন। স্বাস্থ্য দপ্তরের পরামর্শে আপাতত তাঁরা হোম আইসোলেশনে। এমন কঠিন সময়ে তাঁদের বাড়িতে পানীয় জলের সংস্থানটুকুও বন্ধ করে দিয়েছেন জনা কয়েক প্রতিবেশী। এই অমানবিক ঘটনার সাক্ষ্য হয়েছে ইংরেজবাজারের যদুপুর-২ নম্বর ব্লকের গোপালপুর। মণ্ডল পরিবারের অভিযোগ, পানীয় জলের জন্য বাড়ির পাশে একটি নলকূপ আছে। কিন্তু সেই নলকূপের হাতল খুলে দিয়েছেন কিছু প্রতিবেশী। ফলে পানীয় জলের জন্য গ্রামবাসীদের কাছে কার্যত ভিক্ষা করতে হচ্ছে চার-চারজন করোনা রোগীকে। এমন ঘটনা রুখতে অবিলম্বে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চেয়েছে ভুক্তভোগী পরিবারটি। এমন পরিস্থিতিতে পরিবারটি মানসিকভাবেও বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। শুধু পানীয় জল বন্ধ করে দেওয়াই নয়, পাড়ার মুদি দোকানকেও পরিবারটিকে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বিক্রি করতে বাধা দেওয়া হচ্ছে, এমনই অভিযোগ করছেন স্বপনবাবু। বাজার করার ক্ষেত্রেও পরোক্ষভাবে বাধা দেওয়া হচ্ছে। এই অবস্থায় বেঁচে থাকা যাবে কীভাবে, তা নিয়ে অনিশ্চিত আশঙ্কায় দিন গুনছেন পরিবারটি।

- Advertisement -

প্রধানমন্ত্রী-মুখ্যমন্ত্রী থেকে আরম্ভ করে সকলেই এই করোনাকালীন পরিস্থিতিতে রাজনীতি, ধর্ম বা পরিচয় কোনও রং না দেখে শুধু মানুষ হিসাবে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর কথা বারবার বলে চলেছেন, সেখানে মালদা শহর থেকে মাত্র পাঁচ কিলোমিটার দূরত্বে অমানবিকতার এই নতুন চেহারা বিস্ময়ে হতবাক করেছে জেলাবাসীকে। ইংরেজবাজার পঞ্চায়েত সমিতির প্রাক্তন সভাপতি একরাম হোসেন জানান, স্বপনকুমার মণ্ডল আমাকেও জানিয়েছেন বিষয়টি। আমি ইংরেজবাজার এর বিডিওকে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য অনুরোধ করব। চরম অমানবিক ঘটনা। এই মুহূর্তে রাজনীতির ঊর্ধ্বে উঠে সমস্ত করোনা আক্রান্তদের পাশে দাঁড়ানো দরকার।