বিতর্ক এখন পাহাড় চূড়ায়, ছবিতে কারসাজি করে শৃঙ্গ জয়ের দাবি

164
Mount Everest Hill Climbers

ওয়েবডেস্ক, ১২ ফেব্রুয়ারিঃ পর্বতশৃঙ্গে না পৌঁছেই, ছবিতে কারসাজি করে ধরা পড়লেন ৩ জন। বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্টে না পৌঁছেই ছবি এডিট করে ২ জন শংসাপত্র নিয়েছিলেন। পরে, তাদের সেই ছবির কারসাজি ধরা পড়ে যায়। তারপরই আগামী ৬ বছর ওই দেশের কোনও পর্বতে আরোহণ তাদের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়। প্রতারণা অভিযোগে ২ জনের শংসাপত্র বাতিল করা হয়েছে। এছাড়াও, আরও ১ জনকে একই অভিযোগে পর্বতারোহে নিষিদ্ধ করেছে নেপাল সরকার। অভিযুক্ত সকলেই ভারতের বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে। এমনই চাঞ্চল্যকর খবর মিলেছে, একটি আন্তর্জাতিক নিউজ এজেন্সি সূত্রে।

জানা গিয়েছে, নরেন্দ্র সিং যাদব এবং সীমা রানি গোস্বামী নামে ২ জন ২০১৬ সালের বসন্ত মরশুমে এভারেস্ট চূড়ায় আরোহণ করেছিলেন বলে দাবি করেন। সেসময় তাদের দাবিকে সত্যায়িতও করেছিল নেপালের পর্যটন বিভাগ। কিন্তু, নরেন্দ্র সিং যাদব গত বছর ভারতের সম্মানজনক তেনজিং নোরগে অ্যাডভেঞ্চার পুরস্কার পাওয়ার পর থেকেই বিতর্ক দাঁনা বাঁধতে শুরু করে। দেশের পর্বতারোহী এবং সংবাদ মাধ্যমে যাদবের ২০১৬ সালে এভারেস্টজয়ের ছবি বিশ্লেষণ করতেই ছবি কারসাজির বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। পরে, অবশ্য সমালোচনার মুখে পড়েন নরেন্দ্র সিং যাদব। ফিরিয়ে নেওয়া তাঁর পুরষ্কারও। ইতিমধ্যেই, ঘটনা নিয়ে একটি তদন্ত শুরু হয়েছে।

- Advertisement -

নেপালের পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র তারা নাথ অধিকারী গত বুধবার সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, তদন্ত এবং অন্য পর্বতারোহীদের সঙ্গে কথা বলে নিশ্চিত হওয়া গিয়েছে যে, ওই ২ জন কখনও পর্বতচূড়ায় পৌঁছাননি। নেপালি এক কর্মকর্তা বলেন, তারা চূড়ায় ওঠার কোনও প্রমাণ দিতে পারেননি। এমনকি তারা সামিটে অংশ নেওয়ার বিশ্বাসযোগ্য ছবিও জমা দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। সেই কারণে নরেন্দ্র সিং যাদব, সীমা রানি গোস্বামী এবং তাদের দলনেতা নব কুমার ফুকোনকে ছয় বছর নেপালে পবর্তারোহণ থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এছাড়া, ওই অভিযানের আয়োজক সেভেন সামিট ট্রেকসকে ৫০ হাজার টাকা এবং তাদের সহযোগী শেরপাকে ১ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়েছে বলে খবর মিলেছে। নিয়মানুযায়ী, পর্বতচূড়ায় পৌঁছানোর প্রমাণ হিসেবে ছবির পাশাপাশি দলনেতা এবং বেজ ক্যাম্পে সরকারি লিয়াজোঁ কর্মকর্তার প্রতিবেদনও দরকার হয়। বিশ্বের সর্বোচ্চ চূড়ায় ওঠা পর্বতারোহীদের জন্য বহুল আরাধ্য ও সম্মানজনক একটি বিষয়। তবে, ২৯ হাজার ২৯ ফুট উঁচু ওই শৃঙ্গে পৌঁছানোর দুর্গম পথ সম্পন্ন না করেই অনেকে খেতাবের জন্য প্রতারণার আশ্রয় নেন। অবশ্য, পর্বতচূড়ায় না পৌঁছে ভুয়াে ছবি দেখিয়ে শাস্তি পাওয়ার ঘটনা আগেও ঘটেছে। ২০১৬ সালেও এক দম্পতি এভাবে প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছিলেন। পরে, তাদের ১০ বছরের জন্য নেপালে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল।