তমালিকা দে, শিলিগুড়ি : বছর না ঘুরতেই বেহাল হয়ে পড়েছে নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনের ভার্টিকাল গার্ডেন। গতবছর জুলাই মাস নাগাদ উদ্বোধন করা হলেও ১০ লক্ষ টাকার বাগানটির রক্ষণাবেক্ষণের দিকে কোনোরকম নজর নেই রেল কর্তৃপক্ষের। ফলে ইতিমধ্যেই বাগানের বেশিরভাগ গাছ শুকিয়ে গিয়েছে।

এনজেপি স্টেশন সাজাতে গত বছর জুন মাসে মূল গেটের মুখে ভার্টিকাল গার্ডেন তৈরি করা হয়। উত্তর-পূর্ব  সীমান্ত রেলওয়ে কাটিহার ডিভিশনের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে এনজেপি স্টেশনকে সাজিয়ে তোলার অংশ হিসাবে ভার্টিকাল গার্ডেন তৈরি করা হয়। লোহার কাঠামোর উপর প্লাস্টিকের টবে প্রায় দশ হাজার গাছ লাগানো হয় বাগানে। দৃষ্টিনন্দন এই বাগানের উদ্বোধন করেন কাটিহারের ডিআরএম। কিন্তু দেখভালের বালাই না থাকায় বছর ঘুরতেই চেহারা বদলেছে ভার্টিকাল গার্ডেনের। ১০ হাজার গাছের অধিকাংশই জলের অভাবে শুকিয়ে গিয়েছে। অনেক টবে আগাছা জন্মেছে। দেশ-বিদেশ থেকে ঘুরতে আসা যাত্রীদের কাছে এনজেপি স্টেশনকে আকর্ষণীয় করে তুলতে বিভিন্নভাবে স্টেশনটিকে সাজিয়ে তোলা হচ্ছে। স্টেশনের কোথাও ফোয়ারা তৈরি করে, কোথাও দেয়ালে ছবি এঁকে, কিয়স্ক বসিয়ে আকর্ষণীয় করে তোলা হয়েছে। অথচ লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে সাজানো স্টেশন দেখভালের অভাবে এক বছরের মধ্যেই নষ্ট হতে বসেছে। যদিও জানা গিয়েছে, রেলের তরফে টেন্ডার ডেকে একটি সংস্থাকে এই ভার্টিকাল গার্ডেনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু প্রথম থেকেই গার্ডেনটি রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ওই সংস্থার কোনো কর্মীকে দেখা যায়নি। ধীরে ধীরে বাগানের গাছগুলি শুকিয়ে গিয়েছে। কেন ওই সংস্থার বিরুদ্ধে কাজে গাফিলতির জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি, তা নিয়ে এনজেপির কোনো কর্তা মুখ খোলেননি।

পরিমল বিশ্বাস নামে এক যাত্রী বলেন, স্টেশনে ঢুকতেই দেখা যায় সব নষ্ট জিনিসপত্র। এগুলো কেন এভাবে ফেলে রাখা হয়েছে? এত বড়ো একটি বাগানের মধ্যে টবের গাছ প্রায় সব শুকিয়ে রয়েছে। এটা স্টেশনের সামনে রাখার দরকার কি যদি পরিচর‌্যা না হয়? মালবিকা সরকার নামে আরেক যাত্রী বলেন, এই ধরনের জিনিস সঠিকভাবে দেখাশোনা হলে দেখতে খুব সুন্দর লাগে। কিন্তু এভাবে এত বড়ো একটা কাঠামোতে সব শুকনো গাছ লাগিয়ে রাখতে দেখে সত্যিই হাসি পায়।

বন দপ্তরের উদ্যান ও কানন বিভাগের (উত্তর) রেঞ্জ অফিসার  মানব চক্রবর্তী বলেন, একটি ভার্টিকাল গার্ডেনে গাছ বাঁচিয়ে রাখতে প্রতিদিন সেখানে জল দিতে হবে। পাশাপাশি আগাছা থাকলে তা পরিষ্কার করতে হবে।  সেসব না করলে গাছ মরে যাবে, এটাই স্বাভাবিক। শিয়ালদহ ও হাওড়া স্টেশনের ভার্টিকাল গার্ডেন সুন্দরভাবে রয়েছে। বিষয়টি ইতিমধ্যেই চোখে পড়েছে বলে জানান উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের জনসংযোগ আধিকারিক শুভানন চন্দ। তিনি বলেন, স্টেশনের সৌন্দর্যায়নের জন্যই ভার্টিকাল বাগানটি করা হয়েছিল। তাই বাগানটি যাতে সঠিক পরিচর্যার মাধ্যমে ঠিক করে তোলা হয়, সেব্যাপারে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রক্ষণাবেক্ষণের বরাতপ্রাপ্ত সংস্থার কাজও খতিয়ে দেখা হবে।