২৪ দিন পর করোনা আক্রান্তের হদিস নিউজিল্যান্ডে

362
ফাইল ছবি

অনলাইন ডেস্ক: ২৪ দিন পর নিউজিল্যান্ডে করোনা আক্রান্তের হদিস মিলল। মঙ্গলবার নিউজিল্যান্ড সরকার বিষয়টি স্বীকার করেছে। দীর্ঘদিন করোনামুক্ত থাকার পর ফের সংক্রমণের খবর মেলায় চিন্তায় জেসিন্ডা আর্ডেন প্রশাসন।

দুজন মহিলার দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি মিলেছে। অকল্যান্ডের একটি আইসোলেশন ফেসিলিটিতে তাঁদের রাখা হয়েছে। ৭ জুন তাঁরা ব্রিটেন থেকে দেশে ফেরেন। দোহা ও ব্রিসবেন হয়ে তাঁরা নিউজিল্যান্ডে ফেরেন। সেখান থেকেই তাঁরা করোনা সংক্রমণ নিয়ে ফেরেন বলে অনুমান করা হচ্ছে। নিউজিল্যান্ডে এখনও পর্যন্ত প্রায় দেড় হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ২২ জনের।

- Advertisement -

গত ২৪ দিন নিউজিল্যান্ডে নতুন করে কেউ করোনায় সংক্রামিত হননি। গত সোমবার পর্যন্ত টানা ১৭ দিন সেখানে কোনও সংক্রামিতের খোঁজ না মেলায় দেশকে করোনামুক্ত বলে ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডেন। এক টেলিভিশন বার্তায় তিনি বলেন, ‘আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে জানাচ্ছি যে, নিউজিল্যান্ড সংক্রমণের হাত থেকে পুরোপুরি মুক্তি পেয়েছে। করোনাকে আমরা হারিয়ে দিয়েছি।’

নিউজিল্যান্ড বিশ্বের নবম দেশ, যারা নিজেদেরকে করোনামুক্ত বলে ঘোষণা করে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমরা সবাই অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছি। তাই সংক্রমণ থেকে মুক্তির খবর পেয়ে মেয়ের সঙ্গে কিছুক্ষণ নাচলাম। প্রথমে একাই নাচছিলাম। মেয়ে অবাক হয়ে দেখছিল। একটু পরে মেয়েও এসে আমার সঙ্গে যোগ দেয়।’

এরপর লকডাউনও তুলে নেওয়া হয়। তবে আর্ডেন জানিয়েছিলেন, লকডাউন উঠে গেলেও আগামী কিছুদিন সতর্কতা বজায় রাখতে হবে। তবে সভা-সমাবেশের ওপর জারি করা নিষেধাজ্ঞা উঠে যাচ্ছে। দপ্তর ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলিতে স্বাভাবিক কাজকর্ম চলবে। আর্ডেনের ঘোষণার পর নিউজিল্যান্ডের বিভিন্ন জায়গায় উৎসবের আয়োজন করা হয়। অনেককে আনন্দে নাচতেও দেখা গিয়েছে।

তবে এই আনন্দ দীর্ঘস্থায়ী হল না। ফের নতুন করে দু-জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ল। প্রধানমন্ত্রী আগেই সতর্ক করেছিলেন, ভিনদেশ থেকে এখানকার বাসিন্দারা ফিরলে সংক্রমণ দেখা দিতে পারে। তার সেই কথা অক্ষরে অক্ষরে মিলে গেল।