হাল বুঝতে কাউন্টি ম্যাচে দর্শক সাউদিরা

সাউদাম্পটন : হ্যাম্পশায়ার-লেস্টারশায়ারের ম্যাচ।

আর সেই কাউন্টি ম্যাচেই কি না টিম সাউদি, টম ল্যাথামদের মতো তারকা দর্শক! নেপথ্যের কারণটাও পরিষ্কার। ১৯-২২ জুন সাউদাম্পটনের এই রোজবোলে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালে ভারতের বিরুদ্ধে খেলবে নিউজিল্যান্ড। তাই মাঠের আগাম হালহকিকত বুঝতে প্র‌্যাকটিস বন্ধ রেখে দল বেঁধে কাউন্টি ম্যাচ দেখতে চলে আসেন কিউয়ি ক্রিকেটার, সাপোর্ট স্টাফরা।

- Advertisement -

রথ দেখা আর কলা বেচার মতো, পিচ, পরিস্থিতি, পরিবেশ, মাঠের আন্দাজটুকু নিয়ে ফিরলেন কিউয়িরা। নিউজিল্যান্ড বোর্ডের তরফে সেই ছবি পোস্ট করা হয়েছে। সঙ্গে ক্যাপশন – ওরা ক্রিকেট ভালোবাসে। হ্যাম্পশায়ার-লিস্টারশায়ারের ম্যাচের শেষদিনের খেলা দেখতে মাঠে দলের ক্রিকেটার ও সাপোর্ট স্টাফরা। প্রসঙ্গত, রোজবোলেই নিজেদের মধ্যে একটি তিনদিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে (২৬-২৮ মে, টিম সাউদি বনাম টিম ল্যাথাম) নিউজিল্যান্ড। টিম সাউদি ইঙ্গিতপূর্ণভাবে বলছিলেন, এখানে (সাউদাম্পটন) আসতে পেরে ভালো লাগছে। এখানকার পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার সুযোগ মিলল। ফাইনালের আগে যখন এখানে ফিরব, অনেক বেশি স্বচ্ছন্দ্যবোধ করব।

সাউদির সতীর্থ রস টেলর আবার মনে করেন, ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে জোড়া টেস্ট খেলা ফাইনালে তাদের জন্য অ্যাডভান্টেজ। বলেন, ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুটি টেস্ট খেলব। এরচেয়ে ভালো প্রস্তুতি আর কী হতে পারে। ম্যাচটা যখন নিরপেক্ষ কেন্দ্রে। আইপিএল আগেই স্থগিত হওয়ায় ভারতীয় দলও বিশ্রামের পাশাপাশি বাড়তি প্রস্তুতির সুয়োগ পেয়েছে। বিশেষত ওদের বোলাররা। ইংল্যান্ড সিরিজ হয়তো আমাদের কিছুটা বাড়তি সুবিধা দেবে, তবে দীর্ঘদিন ধরে ভারত বিশ্বের এক নম্বর দল। ইংল্যান্ডের মাটিতে ওদের অনেক সাফল্যও রয়েছে।

অ্যাডভান্টেজ নিউজিল্যান্ড বলছেন মন্টি পানেসরও। প্রাক্তন ইংরেজ স্পিনারের যুক্তি, এই মুহূর্তে বৃষ্টি ও ঠান্ডা চলছে এখানে। যদি এই পরিবেশটা থাকে, তাহলে ভারত-কিউয়ি পেসারদের ডুয়েলটা আকর্ষণীয় হবে। তবে কিউয়ি ব্যাটসম্যানরা ভারতের তুলনায় মুভিং বল বেশি ভালো খেলে। সেক্ষেত্রে বল যদি সুইং, মুভ করলে কিউয়ি বোলারদের ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা কীভাবে সামলায় চোখ থাকবে। আবহাওয়া পরিষ্কার থাকলে ভারতই ফেভারিট। আবার ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজের পর ফাইনালে নামবে নিউজিল্যান্ড। উইলিয়ামসনরা সাফল্য পেলে আত্মবিশ্বাস ও মোমেন্টাম নিয়ে ফাইনালে নামবে।