৩০ মিনিটের পথ যেতে সময় লাগছে ৭ ঘণ্টা

371

ময়নাগুড়ি, ১৬ জুলাই: গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে জাতীয় সড়কের অবস্থা ভয়াবহ। জলপাইগুড়ি থেকে ময়নাগুড়ি হয়ে ধূপগুড়ি পর্যন্ত ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কের পুরোটাতেই পিচের চাদরের কোনো অস্তিত্বই নেই। বেহাল পরিস্থিতি আগেই ছিল। কিন্তু গত তিন দিনের বৃষ্টির জেরে সেই বেহাল অংশের গর্তগুলি কোথাও কোথাও ডোবার আকার ধারন করেছে। বেহাল রাস্তায় অন্তত শতাধিক গাড়ি যন্ত্রাংশ ভেঙে রাস্তায় দাঁড়িয়ে রয়েছে। যার জেরে  জাতীয় সড়ক দিয়ে যানচলাচল প্রায় স্তব্ধ হয়ে গিয়েছে। জলপাইগুড়ি থেকে ময়নাগুড়ি হয়ে ধূপগুড়ি পর্যন্ত ৪০ কিলোমিটার রাস্তায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঠায় দাঁড়িয়ে রয়েছে রয়েথে হাজার গাড়ি। ময়নাগুড়ি থেকে জলপাইগুড়ি বা ময়নাগুড়ি থেকে ধুপগুড়ি যাওয়ার জন্য যে পথ পেরোতে আগে সময় লাগত বড়োজোর ৩০ মিনিট, এখন বেহাল রাস্তা ও যানজটের ফলে সেই পথ যেতেই সময় লেগে যাচ্ছে সাত থেকে আট ঘণ্টা।

সমস্যা সমাধানের জন্য হাইওয়ে ১ ট্রাফিক, হাইওয়ে ২ ট্রাফিক, জলপাইগুড়ি কোতোয়ালি থানা, ময়নাগুড়ি থানা এবং ধুপগুড়ি থানা এক যোগে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। জাতীয় সড়কে নামানো হয়েছে বাড়তি বাহিনী। তিস্তা সেতুতে দেওয়া হয়েছে বেরিয়ার। দিন রাত এক করে দিয়ে পুলিশের তরফ থেকে কাজ চালিয়ে যাওয়া হলেও রাস্তার পরিস্থিতি এতোটাই খারাপ যে কোনোভাবেই যানজট সামাল দেওয়া যাচ্ছে না। যেসব গাড়ি যন্ত্রাংশ ভেঙে রাস্তায় দাঁড়িয়ে রয়েছে, সেখানে ক্রেন পৌঁছানো যাচ্ছে না। উদ্ধারকারী ক্রেনও যানজটে আটকে যাচ্ছে।

- Advertisement -

যে বেসরকারি সংস্থা চার লেনের রাস্তা তৈরির বরাত পেয়েছে তারাই ৩১ নম্বর জাতীয় সড়ক রক্ষণাবেক্ষণের কাজ চালানোর কথা। রাস্তার বেহাল পরিস্থিতির জন্য সেই সংস্থার গাফিলতিও সামনে এসেছে। পুলিশ জানিয়েছে, যানজট মোকাবিলার সব রকম চেষ্টা চালানো হচ্ছে।