শুভজিৎ পণ্ডিত, রামপুর : বিজেপি করার অপরাধে বাড়িতে তিন বছর ধরে বিদ্যুতের সংযোগ নেই। এর জেরে তুফানগঞ্জ-২ ব্লকের রামপুর-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের মধুরভাষা এলাকার বাসিন্দা নিখিল দাস পরিবার নিয়ে সমস্যায় পড়েছেন।

নিখিলবাবুর মেয়ে টিংকু এবারে মাধ্যমিক পরীক্ষা দিচ্ছে। বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকায় তাকে অতি কষ্টে পড়াশোনা চালাতে হচ্ছে। নিখিলবাবু বলেন, তিন বছর ধরে এই এলাকায় বসবাস করছি। বহুবার রাজ্য বিদ্যুৎ বণ্টন সংস্থার অফিসে গিয়েছি। তারা জমির দলিল, পাট্টা সহ যাবতীয় কাগজপত্র দেখতে চেয়েছে। কিন্তু বিজেপি করি বলে বহুবার বলেও এতদিনে বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগের ব্যবস্থা হয়নি। শাসকদলের কর্মী হলে এতদিন ধরে এই সমস্যায় ভুগতে হত না। তুফানগঞ্জের বিডিও ভগীরথ হালদার বলেন, প্রতিটি বাড়িতেই বিদ্যুৎ সংযোগ থাকার কথা। বিষয়টি লিখিতভাবে জানালে কেন ওই বাড়িতে বিদ্যুতের সংযোগ নেই তা দেখব। যেহেতু ওই বাড়িতে একজন মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী রয়েছে তাই তার জন্য বিশেষ কোনও ব্যবস্থা করা যায় কিনা দেখছি।

লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই রামপুর-১ এবং রামপুর-২ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে। কয়েকদিন আগে এখানে বিজেপির কয়েকজন কর্মীর বাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ ওঠে। এই পরিস্থিতিতে বাবা বিজেপি করায় বিদ্যুতের অভাবে এক মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর সমস্যায় পড়াকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। রামপুর-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের সিঙ্গিমারি উচ্চবিদ্যালয়ে ছাত্রী টিংকু দাস রাতেরবেলায় কুপির আলোয় কোনওমতে পড়াশোনা সারছে। তার কথায়, বিদ্যুতের সংযোগ না থাকায় কুপির আলোতেই কোনওমতে পড়াশোনা সারতে হচ্ছে। বাড়ি থেকে প্রায় সাত কিলোমিটার দূরত্বে জোড়াই উচ্চবিদ্যালয়ে পরীক্ষাকেন্দ্র পড়েছে। সাইকেল চালিয়ে অত দূর যেতে খুবই সমস্যা হয়।

বিজেপির ৩৩ নম্বর মণ্ডলের সভাপতি বিজনবিহারী বর্মন বলেন, রাজ্য সরকারের এত প্রকল্প রয়েছে। কিন্তু এখনও তুফানগঞ্জ-২ ব্লকের বহু বাড়িতে বিদ্যুতের সংযোগ নেই। টিংকুর সমস্যার বিষয়ে আমরা আন্দোলনে নামব। তৃণমূল কংগ্রেসের তুফানগঞ্জ-২ ব্লক আহ্বায়ক ধনেশ্বর বর্মন বলেন, ওই বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকার বিষয়টি আমার জানা ছিল না। দ্রুতই ওই মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এ নিয়ে আমরা রাজ্য বিদ্যুৎ বণ্টন সংস্থার সঙ্গে কথা বলব।