মহম্মদ হাসিম, নকশালবাড়ি : শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের অন্তর্গত চারটি ব্লকেই ভারত নির্মাণ রাজীব গান্ধি  সেবা কেন্দ্র নিয়ে সমস্যা দেখা দিয়েছে। কোনো ব্লকেই এখনও পর্যন্ত এই কেন্দ্র চালু না হওয়ায় সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলিতে ১০০ দিনের কাজ চালাতে সমস্যা হচ্ছে। ১০০ দিনের কাজে এলাকায় কোনো নির্দিষ্ট দপ্তর না থাকায় জব কার্ড হোল্ডাররা সমস্যায় পড়েছেন। সংশ্লিষ্ট কাজের নথিপত্র ঠিকমতো সংরক্ষণে সমস্যা হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় সরকারের নতুন নীতি অনুযায়ী, চলতি আর্থিক বছরে ১০০ দিনের কাজ নিয়ে সমস্যা দেখা দিয়েছে এবং এর জেরেই ভারত নির্মাণ রাজীব গান্ধি সেবা কেন্দ্র নিয়ে সমস্যা হচ্ছে বলে শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের সভাধিপতি তাপস সরকার জানান। তিনি বলেন, নতুন নির্দেশিকায় গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় ১০০ দিনের কাজে নিকাশিনালা, পাকা রাস্তা, পাথরের বাঁধ তৈরির মতো কাজগুলিকে বাদ দেওয়া হয়েছে। শুধুমাত্র মাটির পুকুর কাটা যাবে। এর জেরে আমরা যথেষ্ট সংখ্যক শ্রমিককে কাজ দিতে পারছি না। গোটা মহকুমায় একমাত্র খড়িবাড়ি ব্লকেই এই কেন্দ্র তৈরির জন্য টাকা বরাদ্দ হয়েছে বলে সভাধিপতি জানান। নকশালবাড়ির বিডিও বাপি ধর অবশ্য বলেন, অর্থাভাবে আমাদের ব্লকে এই কেন্দ্র তৈরির কাজ বন্ধ রয়েছে। দ্রুত কাজটি শেষ করা হবে।

- Advertisement -

১০০ দিনের কাজ যাতে ঠিকমতো করা যায় সেজন্য প্রতিটি ব্লকে নির্দিষ্ট অফিস গড়ার সিদ্ধান্ত হয়। এগুলিকেই ভারত নির্মাণ রাজীব গান্ধি সেবা কেন্দ্র নাম দেওয়া হয়েছে। এই কেন্দ্রগুলিতে একটি মুক্তমঞ্চ, অফিস হিসাবে ব্যবহার ও তথ্যনির্ভর পরিসেবা দেওয়ার জন্য দুটি আলাদা ঘর ও একটি শৌচাগার থাকে। ১০০ দিনের কাজের জন্য যে গ্রাম পঞ্চায়েগুলির নিজস্ব কার্যালয় নেই তারা এই কেন্দ্রগুলিকে সংশ্লিষ্ট কাজের কার্যালয় হিসাবে ব্যবহার করতে পারে। পাশাপাশি, এই কাজের সঙ্গে যুক্ত শ্রমিক অথবা দপ্তরের কর্মীরা এই কেন্দ্রটিকে জ্ঞানসম্পদ কেন্দ্র হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন। সূত্রের খবর, শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের অন্তর্গত চারটি ব্লকে ভারত নির্মাণ রাজীব গান্ধি  সেবা কেন্দ্র তৈরির জন্য দুবছর আগে গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রক থেকে ব্লক প্রতি ৫০ লক্ষ করে সবমিলিয়ে দুই কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়। এই ব্লকগুলির মধ্যে নকশালবাড়ি ও খড়িবাড়িতে এই কেন্দ্রের কাজ শুরু হলেও এখনও তা সম্পূর্ণ হয়নি। অন্যদিকে, মাটিগাড়া ও ফাঁসিদেওয়া ব্লকে এই কেন্দ্র গড়ার কাজ এখনও শুরুই হয়নি।

খড়িবাড়ির বিডিও যোগেশচন্দ্র মণ্ডল বলেন, ব্লকে ভারত নির্মাণ রাজীব গান্ধি সেবা কেন্দ্র তৈরির কাজ চলছে। দ্রুত কাজ শেষের চেষ্টা চলছে। মাটিগাড়ার বিডিও রুনু রায় বলেন, পর্যাপ্ত জায়গা না থাকায় আমরা এখানে এই কেন্দ্র তৈরির জন্য উপরমহলে প্রস্তাব পাঠাতে পারিনি। তবে দ্রুত প্রস্তাব পাঠানো হবে বলে তিনি জানান। ফাঁসিদেওয়ার বিডিও সঞ্জু গুহ মজুমদার বলেন, এলাকায় ভারত নির্মাণ রাজীব গান্ধি সেবা কেন্দ্র তৈরিতে আগের ব্লক প্রশাসনিক আধিকারিকরা কোনো পদক্ষেপ না করার জন্যই সমস্যা দেখা দিয়েছে। ১০০ দিনের কাজ নিয়ে সমস্যা মেটাতে ব্লকে এই কেন্দ্রটি গড়ার বিষয়টি আমাদের পরিকল্পনায় রয়েছে।