কোটি টাকার বিনোদন পার্কে গোরু চরে

শুভদীপ শর্মা, মৌলানি : কয়েক কোটি টাকার বিনোদন পার্কে এখন গোরু চরছে। ভেঙে পড়ছে বসার জায়গা, চুরি হচ্ছে শিশুদের মনোরঞ্জনের নানা উপকরণ। এরকমই বেহাল অবস্থা মৌলানি গ্রাম পঞ্চায়েতের দক্ষিণ মাটিয়ালির বিনোদন পার্কের। চালু হওয়ার কয়েক বছরের মধ্যে পার্কের এই বেহাল দশায় এলাকায় ক্ষোভ ছড়িয়েছে। পার্কটি সংস্কার করে আবার আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

২০০৫ সালে মাল পঞ্চায়েত সমিতির উদ্যোগে দক্ষিণ মাটিয়ালি গ্রামের কামারপাড়ায় প্রায় ২৫ বিঘা জমির ওপর বিনোদন পার্কের কাজ শুরু হয়। কর্মসংস্থানের আশায় গ্রামের ২০ জন বাসিন্দা জমিও দিয়েছিলেন। কিন্তু কাজ শুরুর কিছুদিনের মধ্যেই তা বন্ধ হয়ে যায়। দীর্ঘদিন কাজ বন্ধ থাকার পর বছর চারেক আগে পার্কটির জন্য পর্যটন দপ্তর প্রায় ২ কোটি টাকা বরাদ্দ করে, কাজও শুরু হয়। বছর দুয়েক আগে পার্ক তৈরির কাজ শেষ হয়। পার্কটিতে বসার শেড, শিশুদের মনোরঞ্জনের উপকরণ, বন্যপ্রাণীর মূর্তি বসানো হয়। ব্লক প্রশাসনের তরফে পার্ক পরিচালনার জন্য জমিদাতাদের নিয়ে একটি কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়।

- Advertisement -

কিন্তু অভিযোগ, পার্কে পর্যটকদের আকর্ষণের জন্য ঠিকমতো পরিকাঠামো গড়ে তোলা হয়নি। ফলে কেউ পার্কে আসতে চায় না। যার ফলে রক্ষণাবেক্ষণের ন্যূনতম খরচও তুলতে পারছে না পার্ক পরিচালন কমিটি। গোটা পার্ক জঙ্গলে ভরে গিয়েছে। সেখানে কারও পক্ষে যাওয়া একেবারেই সম্ভব নয়। সীমানাপ্রাচীর না থাকায় সেখানে দিনের বেলায় গোরু চরে বেড়ায়। পার্ক পরিচালন কমিটির সম্পাদক বিনয়কুমার রায় জানান, পার্কের চারপাশে সীমানাপ্রাচীরের প্রয়োজন। পার্কে পর্যাপ্ত বসার জায়গা ও বিদ্যুৎ সংযোগ নেই। বিনয়বাবু বলেন, পার্কের মধ্যে বিরাট একটি জলাশয় আছে। সেখানে নৌকাবিহারের ব্যবস্থা করে দেওয়ার দাবি করেছিলাম আমরা। প্রশাসনের কাছে লিখিত আবেদনও করা হয়েছিল।

মৌলানি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান খুকুমণি রায়বর্মন জানান, বিনোদন পার্কের কাজ শেষ হলেও পার্কটির পরিকাঠামোর আরও উন্নয়নের প্রয়োজন আছে। পার্কের মধ্যে কয়েক বিঘার একটি বড় পুকুর রয়েছে, সেখানে নৌকাবিহারের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। খুকুমণিদেবী জানান, গরুমারাকে কেন্দ্র করে লাটাগুড়িতে প্রতিবছর দেশি-বিদেশি পর্যটকরা আসেন। লাটাগুড়ি লাগোয়া মৌলানিতে পার্কটির আরও উন্নয়ন হলে এই পার্কটিও পর্যটকদের কাছে আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হবে। মহকুমা শাসক শান্তনু বালা জানান, পার্কটির রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব যাদের দেওয়া হয়েছে, তারা ঠিকভাবে সেই দায়িত্ব পালন করছে কি না সে বিষয়ে খোঁজ নিয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।