হিলি : প্রায় তিন বছর আগে পিএইচই দপ্তরের তরফে হিলি ব্লকের অধীনস্থ লালপুর ও সিদাই মোড় এলাকায় স্থাপিত হয় নলবাহিত বিশুদ্ধ পানীয় জলের প্রকল্প। পাম্প বসানোর পাশাপাশি বিশুদ্ধ পানীয় জল হিলি ব্লকের বিস্তীর্ণ এলাকায় পৌঁছে দিতে একই সঙ্গে তৈরি হয় জলের বিরাট দুটি রিজার্ভার। কিন্তু দুটি জায়গায় পাম্প চালু করে পার্শ্ববর্তী কিছু এলাকায় পানীয় জল সরবরাহ শুরু হলেও আজ পর্যন্ত জলের রিজার্ভার দুটি চালু হয়নি। ফলে হিলি ব্লকের বিস্তীর্ণ এলাকা দীর্ঘ ৩ বছর পরেও বিশুদ্ধ পানীয় জল পরিসেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে রয়েছে। গ্রামীণ মানুষের পানীয় জল সমস্যার সমাধানে রিজার্ভার দুটি চালু না হওয়ার ঘটনাটি ঘটেছে হিলি ব্লকের লালপুর ও সিদাই মোড় এলাকায়।

২০১৬-১৭ আর্থিকবর্ষে হিলি ব্লকের লালপুর ও সিদাই মোড় এলাকায় পিএইচই দপ্তর থেকে নলবাহিত বিশুদ্ধ পানীয় জল প্রকল্প স্থাপিত হয়। একই সঙ্গে বিস্তীর্ণ এলাকায় বিশুদ্ধ পানীয় জল সরবরাহের জন্য বিরাট দুটি রিজার্ভার তৈরি হয়। কিন্তু পাম্প চালু করে সামান্য কয়েকটি জায়গায় জল সরবরাহ শুরু হলেও আজ পর্যন্ত রিজার্ভার দুটি চালু হয়নি। ফলে বিস্তীর্ণ এলাকার সাধারণ মানুষ তিন বছর পরও বিশুদ্ধ পানীয় জলের পরিসেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে রয়েছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, প্রশাসনের উদাসীনতায় ও সংশ্লিষ্ট দপ্তরের নিষ্ক্রিয়তায় এই প্রকল্প ভীষণভাবে উপেক্ষিত হচ্ছে। স্বাভাবিক কারণে এনিয়ে ধলপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েত ও সংলগ্ন এলাকার মানুষজন পিএইচই দপ্তর ও প্রশাসনের ওপর ক্ষুব্ধ। তাঁরা অবিলম্বে রিজার্ভার দুটি চালু করে সর্বত্র বিশুদ্ধ পানীয় জল সরবরাহের দাবি জানিয়েছেন।

- Advertisement -

রিজার্ভার দুটি তৈরি হওয়ার তিন বছর পরও চালু না হওয়ায় হিলি ব্লকের চকদাপট, শ্রীরামপুর, ঈশ্বরপাড়া, ডাবরা, চকমোহন, মুরারিপুর, শ্রীকৃষ্ণপুর, জামালপুর, লালপুর ও সিদাই এলাকার প্রায় ১৫ হাজার মানুষ বিশুদ্ধ পানীয় জল পরিসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। ফলে এলাকার মানুষজন পেটের অসুখ, চর্মরোগ সহ বিভিন্ন রোগের শিকার হচ্ছেন বলে গ্রামবাসীদের দাবি। ধলপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বাসিন্দা নিমাই মালি বলেন, সরকার বহু অর্থ ব্যয় করে রিজার্ভার দুটি তৈরি করেছে। কিন্তু প্রশাসনের অকর্মণ্যতায় আজ পর্যন্ত তা মানুষের কোনো কাজেই লাগল না। হাজার হাজার মানুষ বিশুদ্ধ পানীয় জল থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এর একটা বিহিত হওয়া জরুরি। একই বক্তব্য স্থানীয় সাধন মাহাতো, নির্মল শীল, মানিক মণ্ডল, ডলি দাস, ফুলমণি হেমব্রম, দেবদুলাল মণ্ডলদের।

গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন প্রধান উজ্জ্বলচন্দ্র মণ্ডল বলেন, ২০১৬-১৭ আর্থিকবর্ষে আমি দাযিত্বে থাকাকালীন এই রিজার্ভার দুটি নির্মিত হয়েছিল। কথা হয়েছিল, পিএইচই দপ্তর রিজার্ভার দুটি চালু করবে এবং নজরদারির দায়িত্ব ধলপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের হাতে তুলে দেবে। কিন্তু আজ পর্যন্ত কোনো কিছুই হয়নি। ফলে প্রায় ১৫ হাজার মানুষ বিশুদ্ধ পানীয় জল পরিসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। কবে বা আদৌ এই প্রকল্প সঠিকভাবে চালু হবে কিনা জানি না। বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে হিলি ব্লকের নবনিযুক্ত বিডিও সৌমেন বিশ্বাস বলেন, আমি সবে দায়িত্ব নিয়েছি। বিষয়টি আমার জানা নেই। আমি খোঁজখবর নিয়ে দেখছি কী করা যায়।

এবিষয়ে ধলপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান শেফালি বর্মন জানান, জলের রিজার্ভার দুটি চালু করার জন্য আমি একাধিকবার পিএইচই দপ্তরে চিঠি দিয়ে অনুরোধ জানিয়েছি। তারা দেখছি, দেখব বলে আশ্বাস দিয়ে যাচ্ছে। কাজের কাজ কিছুই হয়নি। আমি বিষয়টি নিয়ে ফের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সঙ্গে কথা বলব।