কোর্টের পাশে ফটোগ্রাফার কেন, প্রশ্ন জোকারের

মেলবোর্ন : একসময় তাঁকে নিয়ে প্রত্যাশা এতটাই ছিল যে, নাম রাখা হয়েছিল বেবি ফেডেরার। কিন্তু সেই নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি মারিয়া শারাপোভার প্রাক্তন প্রেমিক গ্রিগর দিমিত্রিভ। তবে রবিবার গতবারের ইউএস ওপেন জয়ী ডমিনিক থিয়েমকে হারিয়ে ফের আশা জাগালেন। এদিন ম্যাচ জিতে শেষ আটে পৌঁছে গেলেন নোভাক জকোভিচ, সেরেনা উইলিয়ামস, সিমোনা হালেপ, নাওমি ওসাকারও।

দিমিত্রিভের বিরুদ্ধে প্রথম দুই সেটে শুরুটা ভালোই করেন থিয়েম। দুবারই ৩-১ পয়েন্ট এগিয়ে যান। কিন্তু দুবারই ৪-৬ পয়েন্টে হারলেন। তৃতীয় সেটে অবশ্য তিনি দাঁড়াতেই পারলেন না। মিনিট কুড়ির মধ্যেই কোনও পয়েন্ট না হারিয়ে সেট জিতে নিলেন দিমিত্রিভ। ম্যাচের পর বললেন, মরশুমে হাতেগোনা কয়েকটা ম্যাচই আমাদের ভাবনা মতো হয়। এদিন তেমন একটা ম্যাচ খেললাম। আমি শুধু নিজের খেলায় মন দিয়েছিলাম। কারণ ডমিনিকের বিরুদ্ধে জেতাটা সহজ নয়। কোয়ার্টার ফাইনালে তাঁর প্রতিপক্ষ আসলান কারাৎসেভ।

- Advertisement -

জকোভিচের সামনে তেমন প্রতিরোধ গড়তে পারলেন না মিলোস রাওনিচ। শীর্ষবাছাই জোকার জিতলেন ৭-৬ (৭-৪), ৪-৬, ৬-১, ৬-৪ সেটে। রড লেভার এরিনায় কোর্টের পাশে ফটোগ্রাফারদের দাঁড়িয়ে থাকা নিয়ে ম্যাচের মধ্যেই প্রশ্ন তুলে চেয়ার আম্পায়ারের দ্বারস্থ হতে দেখা গিয়েছে তাঁকে। সোমিফাইনালে যাওয়ার লড়াইয়ে জোকারের প্রতিপক্ষ আলেকজান্ডার জেভরেভ এদিন ডুসান লাজোভিচকে হারালেন ৬-৪, ৭-৬ (৭-৫), ৬-৩ সেটে।

প্রত্যাশা মতোই কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি হলেন সেরেনা এবং হালেপ। র্যাংকিংয়ে চারধাপ এগিয়ে থাকা আরিনা সাবালেঙ্কা অবশ্য ১১ নম্বরে থাকা সেরেনাকে ভালোই বেগ দিলেন। ২ ঘন্টা ১০ মিনিটের লড়াই শেষে সেরেনা জিতলেন ৬-৪, ২-৬, ৬-৪ সেটে। এই নিয়ে ৫৪ বার গ্র্যান্ড স্ল্যামের শেষ আটে পৌঁছালেন তিনি, ওপেন এরায় ক্রিস এভার্টের সঙ্গে যুগ্মভাবে সর্বোচ্চ।

অন্য ম্যাচে হালেপ প্রথম সেটে হেরেও দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ালেন। ১ ঘন্টা ৫০ মিনিটের ম্যাচে ইগা স্বয়াতেককে হারালেন ৩-৬, ৬-১, ৬-৪। নাওমি ওসাকা ও গারবিনে মুগুরুজার ম্যাচের চিত্রটাও প্রায় একই ছিল। প্রথম সেটে ওসাকা হারলেন ৬-৪ পয়েন্টে। কিন্তু পরের দুই সেটে জিতলেন ৬-৪, ৭-৫ পয়েন্টে। কোয়ার্টার ফাইনালে সুউই হসিহর বিরুদ্ধে খেলবেন ওসাকা।