আলিপুরদুয়ার : জাতীয় নাগরিক পঞ্জিতে (এনআরসি) আলিপুরদুয়ার জেলা থেকে অসমে চলে যাওয়া প্রচুর মানুষের নাম ওঠেনি। বিশেষ করে এই জেলা থেকে যে সব মেয়ের অসমে বিয়ে হয়েছে তাঁদের অনেকে নাম এনআরসি তালিকায় নাম ওঠেনি বলে অভিযোগ।  তাঁদের বিষয়ে এবার তথ্য সংগ্রহ করতে শুরু করলো আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদ। যাঁদের নাম বাদ গিয়েছে তাঁদের বিভিন্ন নথি জোগাড় করে আইনি সহায়তাও দেওয়া হবে বলে আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদের সভাধিপতি শিলা দাস সরকার জানিয়েছেন। পাশাপাশি সব তথ্য আগামী এক মাসের মধ্যে সংগ্রহ করে নবান্নে পাঠানো হবে বলে জেলা পরিষদের সভাধিপতি জানিয়েছেন।
কয়েকদিন আগে অসমে এনআরসি-র চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ হয়েছে। ওই তালিকায় প্রায় ১৯ লক্ষ মানুষের নাম বাদ পড়েছে বলে জানা গিয়েছে। এই বাদ পড়াদের তালিকায় আলিপুরদুয়ার জেলা থেকে বৈবাহিক সূত্রে বা অন্য কারণে স্থায়ীভাবে অসমে চলে যাওয়া প্রচুর মানুষের নাম রয়েছে।
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, অসমে যখন এনআরসি-র কাজ চলছিল তখন এই জেলা থেকে যাঁরা অসমে চলে গিয়েছেন তাঁরা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে গিয়েছেন। এজন্য আলিপুরদুয়ারের প্রশাসনিক ভবন ডুয়ার্সকন্যায় একটি অফিস খোলা হয়েছিল। গ্রাম পঞ্চায়েত ও বিডিও অফিস থেকে নথিপত্র নিয়ে এসে ডুয়ার্সকন্যায় তা জমা করে প্রয়োজনীয় কাগজ নিতে হয়েছে তাঁদের। ওই নথিপত্র তাঁরা অসমের এনআরসি ক্যাম্পে জমা দিয়েছেন। কিন্তু কয়েকদিন আগে অসমে প্রকাশিত এনআরসির তালিকায় দেখা গিয়েছে, এই জেলা থেকে সেখানে যাওয়া প্রচুর মানুষের নাম চূড়ান্ত তালিকায় নেই। আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদ সূত্রে জানাগেছে,
জেলায় মোট ৬৬ টি গ্রাম পঞ্চায়েত আছে।এই জেলা থেকে যারা অসমে চলে গিয়েছেন তাঁরা প্রত্যেকেই কোনো না কোনো গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বাসিন্দা ছিলেন। তাঁদের সেইসব তথ্যই জোগাড় করছে জেলা পরিষদ।
জেলা পরিষদের সভাধিপতি শিলা দাস সরকার বলেন, আমরা জেলার ৬৬ টি গ্রাম পঞ্চায়েতকেই অনুরোধ করেছি যাঁরা পঞ্চায়েতগুলি থেকে এনআরসি-র জন্য কাগজপত্র নিয়েছেন তাণদের মধ্যে কাদের নাম ওই তালিকায় উঠেছে আর কাদের নাম ওঠেনি তার একটা তালিকা তৈরি করে আমাদের দিতে।পঞ্চায়েতগুলি ওই তালিকা আমাদের দিলেই সেই তালিকা আমরা নবান্নে পাঠাবো। বিশেষ করে যাঁদের নাম এনআরসি তালিকায় উঠেনি তাঁদের প্রয়োজনীয় নথিপত্র ও আইনি সহায়তা দেওয়া হবে। গোটা বিষয়টিই খোদ মুখ্যমন্ত্রী দেখবেন বলে সভাধিপতি জানিয়েছেন।
বিজেপির আলিপুরদুয়ার জেলার সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত রায় বলেন, আমরাও চাই প্রকৃত ভারতীয় কারও নাম এনআরসির তালিকা থেকে যাদে বাদ না যায়। এই জেলা থেকে অসমে গিয়েছেন, এমন যাঁদের নাম তালিকায় ওঠেনি তাদের আমরাও সব ধরনের সাহায্য করব।

ছবি : আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদ।

তথ্য ও ছবি : ভাস্কর শর্মা।