ভ্যাকসিন না পেয়ে নার্সদের বিক্ষোভ তুফানগঞ্জ হাসপাতালে

364

তুফানগঞ্জ: করোনাকালে মানুষকে পরিষেবা দিয়েও নিজেরা ভ্যাকসিন না পেয়ে বিক্ষোভ দেখালেন তুফানগঞ্জ মহকুমা হাসপাতালের নার্সরা। অভিযোগ, বাইরের লোকেদের ভ্যাকসিন দেওয়া হলেও খোদ নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরাই তা পাচ্ছেন না। এই অভিযোগ তুলেই মঙ্গলবার তুফানগঞ্জ মহকুমা হাসপাতালের সুপারের অফিস ঘেরাও করেন বিক্ষোভ দেখান নার্সরা। তাঁদের আন্দোলনের প্রতি নৈতিক সমর্থন জানিয়েছেন হাসপাতালের বেশ কয়েকজন চিকিৎসক সহ স্বাস্থ্যকর্মীরা।

এদিন সকাল সাড়ে এগারোটা থেকে বেলা দেড়টা পর্যন্ত চলে নার্সদের বিক্ষোভ। তুফানগঞ্জ মহকুমা হাসপাতালের স্টাফ নার্স দীপালি মণ্ডল বলেন, ‘আমাকে ফোন করে ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য সোমবার আসতে বলা হয়। কিন্তু সোমবার হাসপাতালে এসে সুপারের মুখে শুনি, আমার ভ্যাকসিন আজ হবে না। সুপার জানান, আমরা ফ্রন্ট লাইন ওয়ার্কার্স। অথচ আমাদের প্রথমে ভ্যাকসিন না দিয়ে বাইরের লোকজনকে দেওয়া হচ্ছে।’

- Advertisement -

নীলা সরকার নামে আরেক নার্স বলেন, ‘রবিবার রাতে হাসপাতালের রোগী সহায়তা কেন্দ্রের এক কর্মী আমাকে জানান, ভ্যাকসিন নিতে সোমবার আসতে হবে। কিন্তু এসে শুনি সুপার যে ভ্যাকসিনের লিস্ট পাঠিয়েছিলেন, তা বাতিল হয়ে গিয়েছে। আমরা ফ্রন্ট লাইন ওয়ার্কার্স। আমাদের বাদ দিয়ে কীভাবে বেসরকারি ল্যাবের লোকজন, গাড়িচালক, অবসরপ্রাপ্ত নার্সদের ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে, তা বুঝতে পারছি না।’

তুফানগঞ্জ মহকুমা হাসপাতালের চিকিৎসক ডাঃ এস এ আহমেদ বলেন, ‘নার্সরা স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে সরাসরি জড়িত। তাঁদের ভ্যাকসিন দেওয়া প্রথমে জরুরি।’ অপর চিকিৎসক ডাঃ বঙ্কিম প্রসাদ রায় বলেন, ‘আসলে বাইরের লোক ভ্যাকসিন পাচ্ছেন, অথচ যাঁরা স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত, তাঁরা ভ্যাকসিন পাচ্ছেন না। ভ্যাকসিনের তালিকা তৈরির ক্ষেত্রে কোনও দুরভিসন্ধি রয়েছে কিনা, তা নিয়েও সন্দেহ রয়েছে।’

তুফানগঞ্জ মহকুমা হাসপাতালের সুপার ডাঃ মৃণাল কান্তি অধিকারী বলেন, ‘ভ্যাকসিনের তালিকা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের থেকে আসে। নার্সদের বিক্ষোভের কথা জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরে জানাব। অবসরপ্রাপ্ত নার্সকে ভ্যাকসিন দেওয়ার বিষয়টি খতিয়ে দেখব।’