প্রথম রূপান্তরকামী হিসেবে অলিম্পিকে হুবার্ড

ওয়েলিংটন : প্রথম রূপান্তরকামী হিসেবে অলিম্পিকে নামার যোগ্যতা অর্জন করলেন নিউজিল্যান্ডের ভারোত্তলক লরেল হুবার্ড। মেয়েছের ৮৭ কেজির সুপার-হেভিওয়েট বিভাগে নামবেন তিনি। গেমসেই ইতিহাসে তিনিই বয়স্কতম ভারোত্তলক হতে চলেছেন।

২০১৩ সাল নাগাদ পুরুষ থেকে মহিলা হন হুবার্ড। এরপর ২০১৫ সালে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি সিদ্ধান্ত নেয়, এবার থেকে ট্রান্সজেন্ডার অ্যাথলিটরাও গেমসে অংশ নিতে পারবেন। যদিও প্রতিযোগিতার এক বছর আগে থেকে সংশ্লিষ্ট অ্যাথলিটের শরীরে টেস্টোস্টেরন হরমোনের মাত্রা প্রতি লিটারে ১০ ন্যানোমোলের বেশি হওয়া চলবে না। এই মাপকাঠি মেনেই সুযোগ পাওয়া হুবার্ড সমর্থনের জন্য নিউজিল্যান্ডের সমস্ত নাগরিককে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। কিউয়ি ক্রীড়ামন্ত্রী গ্রান্ট রবার্টসনের বক্তব্য, লরেল নিউজিল্যান্ডের অলিম্পিক দলের সদস্য। অন্য অ্যাথলিটদের মতো আমরা ওকে নিয়ে গর্বিত। সেদেশের অলিম্পিক কমিটির সিইও কেরেন স্মিথ বলেন, আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি ও ভারোত্তলন সংস্থার সমস্ত নিয়ম মেনে লরেল যোগ্যতা অর্জন করেছে।

- Advertisement -

যদিও আইওসির এই সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করেছেন বিজ্ঞানী ও অ্যাথলিটদের একাংশ। বিজ্ঞানীদের মতে, বযঃসন্ধির সময় পুরুষ হওয়ায় এই অ্যাথলিটরা বাড়তি সুবিধা পাবেন। সেভ উইমেন্স স্পোর্ট অস্ট্রেলাশিয়া নামে একটি সংগঠনও হুবার্ডকে সুযোগ দেওয়ার বিরোধী। তাদের বিবৃতি, আইওসির ভ্রান্ত নীতির জন্যই ৪৩ বছরের এক শারীরিকভাবে পুরুষ অ্যাথলিট নারী হিসেবে মহিলাদের বিভাগে খেলার সুযোগ পেলেন। নিজের ক্যাটেগোরিতে কমনওয়েল গেমসে চ্যাম্পিয়ন সামোয়ার ফেগাইগা স্টোওয়েন্সকে ২০১৯ প্যাসিফিক গেমসে হারিয়ে সোনা পেয়েছেন হুবার্ড। সামোয়ার ভারোত্তলন কোচের মতে, এই সিদ্ধান্ত ডোপ করা কোনও অ্যাথলিটকে ছাড়পত্র দেওয়ার সমান।

অবশ্য টোকিওয় হুবার্ডের একমাত্র ট্রান্সজেন্ডার অ্যাথলিট হওয়ার সম্ভাবনা কম। মার্কিন বিএমএক্স রাইডার চেলসা উলফের নাম ইতিমধ্যে দলের পরিবর্ত হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। তবে তাঁর টোকিও যাওয়ার বিষয়টি এখনও নিশ্চিত হয়নি। এছাড়া কানাডার মহিলা ফুটবলার কুইন গত বছর নিজেকে ট্রান্সজেন্ডার হিসেবে ঘোষণা করেন। জাতীয় দলে জায়গা পেলে তিনিও গেমসে যাবেন। ২০১৬ সালে রিও অলিম্পিকে ব্রোঞ্জজয়ী দলে ছিলেন তিনি।