বৃদ্ধার গলার নলি কাটা দেহ উদ্ধারের ঘটনায় আটক ২

212

রায়গঞ্জ: বৃদ্ধার গলার নলি কাটা দেহ উদ্ধারের ঘটনায় দু’জনকে আটক করল রায়গঞ্জ থানার পুলিশ। যদিও মূল অভিযুক্ত ফেরার। সোমবার দুপুর থেকেই খুনের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে দুই ব্যক্তিকে ম্যারাথন জেরা করে পুলিশ। এদিকে মায়ের মৃত্যুর খবর শুনে দিল্লি থেকে প্লেনে করে রায়গঞ্জের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন তাঁর দুই ছেলে। বাগডোগরায় নেমে সড়কপথে বাড়িতে আসার কথা রয়েছে তাঁদের। এদিন বিকেলে বৃদ্ধার দেহ ময়নাতদন্তের পর পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

রবিবার এক বৃদ্ধাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলার নলি কেটে খুনের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায় রায়গঞ্জ থানার বিন্দোল গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায়। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতার নাম মাজেদা বেওয়া (৬০)। জানা গিয়েছে, ওই বৃদ্ধার দুই ছেলে রয়েছে। তাঁরা দিল্লিতে একটি নামি নির্মাণ সংস্থার ঠিকাদারি কাজে কর্মরত। একমাত্র মেয়ের বিয়ে হয়েছে হেমতাবাদের গুটিন গ্রামে। ওই বৃদ্ধা বাড়িতে একাই থাকতেন। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই বৃদ্ধা বাড়িতে একা থাকার সুবাদে বাথরুমের ভেতর মুখে কাপড় গুঁজে গলার নলি কেটে সমস্ত অলংকার, টাকা-পয়সা নেওয়ার পাশাপাশি সমস্ত ঘর তছনছ করে দুষ্কৃতীরা। বাড়িতে ঢুকে টাকা-পয়সা সোনাদানা নেওয়ার সময় ওই বৃদ্ধা বাধা দেওয়ায় খুন হতে হয়েছে বলে প্রাথমিক তদন্তে অনুমান।

- Advertisement -

গতকাল রাত ১২টা পর্যন্ত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন জেলা পুলিশের কর্তারা। জানা গিয়েছে, ঘটনায় মূল অভিযুক্ত সিরাজুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে জেলা পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ। স্থানীয় তৃণমূল নেতা তথা প্রাক্তন উপপ্রধান মনসুর আলী বলেন, ‘কী কারণে ওই বৃদ্ধাকে খুন হতে হল তার তদন্ত করছে জেলা পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ।’ জেলা পুলিশের এক কর্তা বলেন, ‘মৃতার পরিবারের দাবি বাড়ি লুটপাট করার জন্যই খুন করা হয়েছে ওই বৃদ্ধাকে। দু’জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। মূল অভিযুক্তের খোঁজে তল্লাশি চালানো হচ্ছে।’