চিকিৎসক নন, কবিরাজের দ্বারস্থ হয়ে পা হারাতে চলেছেন বৃদ্ধা

114

রাঙ্গালিবাজনা: চিকিৎসক নন, কবিরাজের দ্বারস্থ হয়ে পা হারাতে চলেছেন বৃদ্ধা। তাঁর পায়ে পচন ধরেছে। ফালাকাটা ব্লকের দেওগাঁও গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার ওই বৃদ্ধার নাম জমিরন বিবি। আজও মানুষ কতটা কুসংস্কারাচ্ছন্ন, তা এই ঘটনায় ফের সামনে এল।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, দশ-বারো দিন আগে পশ্চিম দেওগাঁওয়ের বৃদ্ধা জমিরন বিবি (৬০) ডান পায়ে আঘাত পান। সেসময় পরিবারের লোকজন তাঁকে চিকিৎসকের পরিবর্তে কবিরাজের কাছে নিয়ে যান। কিন্তু এতে লাভ তো হয়নি বরং চিকিৎসা শুরুতে দেরি হয়ে যায়। পরে অবশ্য ওই বৃদ্ধাকে বীরপাড়া রাজ্য সাধারণ হাসপাতাল নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু ততদিনে তাঁর পায়ে পচন ধরে গিয়েছে। পাঁচদিন চিকিৎসাধীন থাকার পর তাঁকে বাইরে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তবে অর্থনৈতিক কারণে বৃদ্ধার চিকিৎসা কার্যত বন্ধ আছে। বাড়িতেই পড়ে রয়েছেন তিনি।

- Advertisement -

জমিরনের ছেলে নবিয়ার হোসেন জানান, মাকে কবিরাজের কাছে নিয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু লাভ হয়নি। মায়ের পায়ে পচন ধরেছে। চিকিৎসক তাঁকে কলকাতা নিয়ে যেতে বলেছেন। হয়তো পা কেটে বাদ দিতে হবে। কিন্তু কলকাতা তো দূরের কথা, শিলিগুড়ি নিয়ে যাওয়ার মতো সামর্থও তাঁদের নেই বলে জানান নবিয়ার।

এদিকে, রোগীকে রেফার করে দায় না এড়িয়ে বীরপাড়া রাজ্য সাধারণ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের আরও মানবিক হওয়া উচিত ছিল বলে মন্তব্য দেওগাঁও গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান রহিফুল আলমের। তবে হাসপাতালের সহকারী সুপার বিপুল বোসের বক্তব্য, খুব প্রয়োজন না হলে কাউকে রেফার করা হয় না। হাসপাতালে সার্জন থাকলেও পরিকাঠামোগত কিছু সমস্যার জন্য মাঝে মধ্যে রোগীদের অন্যত্র রেফার করা হয়।