ভোটের মুখে পূর্ব বর্ধমানে জাল নোট পাচার চক্রের পাণ্ডা গ্রেপ্তার

54

বর্ধমান, ২৯ মার্চ: বিধানসভা ভোটের মুখে পূর্ব বর্ধমানে খণ্ডঘোষ থেকে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ) জাল নোটের কারবারী চক্রের এক পাণ্ডাকে গ্রেপ্তার করল। ধৃত নাম জাকির শেখ খণ্ডঘোষ থানার বেড়ুগ্রামের বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে। এনআইএ আধিকারিক দল রবিবার রাতে বাড়ি থেকে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে। একইসঙ্গে দু’টি মোবাইল ফোনও বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে বলে খবর।

এনআইএ গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, জাকির শেখের সঙ্গে আরও অনেক জাল নোটের কারবারে জড়িত রয়েছে। ওই চক্রের লোকজনই বাংলাদেশ ও নেপাল থেকে জাল নোট, এনে এই দেশের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে দিচ্ছে। এই চক্রের ৪ জন ইতিমধ্যেই গ্রেপ্তারও হয়েছে। বাংলাদেশ ও নেপালে যারা জাল নোটের কারবারে জড়িত রয়েছে, তাদের ধরতে দুই দেশের সরকারের সঙ্গে আলোচনা চলছে বলে এনআইএ সূত্রে খবর। এদিকে, ভোটের মুখে খণ্ডঘোষ থেকে জাল নোট কারবারি চক্রের পাণ্ডা এনআইএ-য়ের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার ঘটনা জানাজানি হতেই শোরগোল পড়ে গিয়েছে।

- Advertisement -

এনআইএ সূত্রের খবর, পূর্বে কলকাতায় কাস্টমসের গোয়েন্দাদের হাতে জাল নোট সহ ধরা পড়েছিল জাকির শেখ। এনআইএ গোয়েন্দাদের দাবি জাকির পূর্ব বর্ধমান ও আশপাশের জেলায় প্রচুর জাল নোট ছড়িয়েছে। সোমবার ধৃতকে বর্ধমান আদালতে পেশ করা হয়। এনআইএ আধিকারিকরা ধৃত জাকিরকে তিন দিনের ট্রানজিট রিমান্ডে শিলিগুড়ি নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চেয়ে আদালতে আবেদন জানান। সিজেএম সেই আবেদন মঞ্জুর করেছেন।পাশাপাশি ধৃতকে ১ এপ্রিলের মধ্যে শিলিগুড়ির এনআইএ আদালতে পেশ করে সেই সংক্রান্ত রিপোর্ট বর্ধমান আদালতে পেশ করার জন্যেও সিজেএম নির্দেশ দিয়েছেন।

খণ্ডঘোষ থেকে ধৃত জাকির শেখকে ট্রানজিট রিমান্ডে শিলিগুড়ি নিয়ে যাওয়ার পিছনেও গুরুত্বপূর্ণ কারণ রয়েছে। এনআইএ সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০২০ সালের ৮ জানুয়ারি শিলিগুড়ির বাগডোগরার বিহার মোড় বাসস্টপ এলাকা থেকে রেভিনিউ ইন্টেলিজেন্সের গোয়েন্দারা এক জাল নোটের কারবারিকে ধরে। ওই অভিযুক্ত গোলাম মোর্তুজা ওরফে সাজাতুর রহমান, মালদার জগদীশপুরের বাসিন্দা। ওই দিন গোলাম মর্তুজার কাছ থেকে ৪ লক্ষ ১ হাজার টাকার জাল নোট উদ্ধার হয়। তার মধ্যে ২০০টি ২ হাজার এবং ২টি ৫০০ টাকার জাল নোট ছিল। কাস্টমস এই বিষয়ে মামলা রুজু করে। মামলার গুরুত্ব বুঝে স্বরাষ্ট্র দপ্তর ৯ মার্চ ওই মামলার তদন্তভার এনআইএ-য়ের হাতে তুলে দেয়। এই মামলার তদন্তে নেমে এনআইএ মহম্মদ বাইতুল্লাহ, মহম্মদ মুকতার আলম ও সাদেক মিঞাকে গ্রেপ্তার করে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে এনআইএ গোয়েন্দারা নিশ্চিত হয় চক্রটি সন্ত্রাসবাদী কাজকর্ম ছাড়াও স্মাগলিং ও জাল নোট পাচারের কাজে জড়িত রয়েছে।

চক্রের লোকজন বাংলাদেশ থেকে জাল নোট এনে দেশের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে দিয়েছে। এনআইএ গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন, চক্রটি অত্যন্ত উন্নত মানের জাল নোট তৈরি করে। যে নোট সাদা চোখে জাল বলে ধরাই কার্যত অসম্ভব। এনআইএ-য়ের দাবি, এই ভাবে জাল নোট ছড়িয়ে দেশের অর্থনীতিকে ভেঙে ফেলার চক্রান্তে ধৃতরা জড়িত। এমন গুরুত্বপূর্ণ মামলার তদন্ত সম্পূর্ণ করে এনআইএ ধৃত ওই ৪ জনের বিরুদ্ধে জাল নোটের কারবারের পাশাপাশি আন ল’ফুল অ্যাক্টিভিটিস প্রিভেনশন অ্যাক্টের একাধিক ধারায় সাপ্লিমেন্টারি চার্জশিট পেশ করেছে। এবার এনআইএ খন্ডঘোষের জাকির শেখকে নিজেদের হেপাজতে নিয়ে জাল নোট কারবারী চক্রের একেবারে শিকড়ে পৌঁছাতে চাইছে।