কৃষকদের লক্ষ লক্ষ টাকা জালিয়াতির চক্র ফাঁস, গ্রেপ্তার পান্ডা

299
সংগৃহীত

খড়িবাড়ি: লক্ষ লক্ষ টাকা জালিয়াতির চক্র ফাঁস খড়িবাড়িতে। কখনও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ভাড়া নিয়ে আবার কখনও ভুয়ো অ্যাকাউন্ট খুলে গ্রাহকের অজান্তেই সরাসরি ব্যাংকের কর্মীর মাধ্যমে এটিএম হাতিয়ে টাকা তুলে নিয়েছে জালিয়াতরা। ঘটনাকে কেন্দ্র করে সোমবার ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে খড়িবাড়ি ব্লকের বুড়াগঞ্জে। চক্রের পান্ডাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ধৃতের নাম মাধব সিংহ। বাড়ি বুড়াগঞ্জের দেওয়ানভিটা এলাকায়।

জানা গিয়েছে, প্রখর বুদ্ধি খাটিয়ে এতটাই নিখুঁত পদ্ধতিতে জালিয়াতি প্রক্রিয়া চলছিল তা ধরার কোনও উপায় ছিল না। নিখুঁত কারসাজির ছক সাজিয়েছিল জালিয়াতরা। জালিয়াতি চলত কখনও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ভাড়া নিয়ে, আবার কখনও ভুয়ো অ্যাকাউন্ট খুলে। গ্রামের সাধারণ কৃষকদের কাউকে কৃষিঋণ আবার কাউকে গবাদিপশুর ঋণ পাইয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেওয়া হত। আবার কাউকে নগদে পাঁচশো টাকা দিয়েও আধার কার্ড, ভোটার কার্ড, প্যান কার্ড ও তাদের ফিঙ্গারপ্রিন্ট নিয়ে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলত জালিয়াতরা। গ্রাহকের অজান্তেই সরাসরি ব্যাংকের কর্মীদের সঙ্গে যোগসযোগের মাধ্যমে তুলে নেওয়া হত এটিএম কার্ড। অভিযুক্তের সঙ্গে তিনজন ব্যাংক কর্মীর নাম উঠে এসেছে। তদন্তে উঠে এসেছে, চক্রটি বাজার থেকে ধান কিনে বিভিন্ন উপভোক্তার নামে সরকারি সহায়ক মূল্যে তা বিক্রি করে কৃষকদের অজান্তেই লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। প্রায় দু’বছর থেকে এই চক্রটি এলাকায় সক্রিয় বলে অভিযোগ উঠেছে।

- Advertisement -

বিষয়টি জানাজানি হতেই আজ এলাকার কিছু সচেতন মানুষ সরব হয়। তদন্তের জন্য গণ অভিযোগ জানানো হয় খড়িবাড়ির বিডিওকে। খড়িবাড়ি থানায় বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ জানান হাতিডোবা গ্রামের বাসিন্দা নারায়ণ বৈদ্য। তিনি জালিয়াতি চক্রের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থার দাবি জানান। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশকে উপযুক্ত তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন খড়িবাড়ি বিডিও নিরঞ্জন বর্মন। অভিযোগ পেয়েই পুলিশ মূল অভিযুক্ত মাধব সিংহের বাড়িতে হানা দেয়। উদ্ধার করা হয় সাধারণ মানুষের প্রচুর নথিপত্র। হেপাজতে নিয়ে ধৃতকে জেরা শুরু করেছে খড়িবাড়ি পুলিশ।