বাংলাদেশে কাফ সিরাপ পাচারের চেষ্টা, বিএসএফের হাতে পাকড়াও এক

163

মেখলিগঞ্জ: চোরাপথে সীমান্ত পেরিয়ে কাফ সিরাপ পাচারের সময় এক ব্যক্তিকে হাতে নাতে ধরল বিএসএফ। ঘটনাটি কোচবিহার জেলার কুচলিবাড়ি সীমান্তের। ওই ব্যক্তিকে কুচলিবাড়ি থানার পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। ধৃতের নাম মহম্মদ জিয়ারুল। কুচলিবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাতেই তার বাড়ি। ধৃতের কাছ থেকে ১৫০ বোতল কাফ সিরাপ উদ্ধার হয়েছে।

সোমবার সীমান্তের জিকাবাড়ি এলাকা দিয়ে ওই ব্যক্তি বাংলাদেশে কাফ সিরাপ পাচারের চেষ্টা করছিল। খবর পেয়ে বিএসএফের ১৪৩ নম্বর ব্যাটালিয়নের প্রহরারত জওয়ানেরা তাকে আটক করে। তার এই পাচারের কাজে বড় কোনও চক্র জড়িত রয়েছে কি না, সে বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে কিছু তথ্যও পেয়েছেন তাঁরা। যদিও এবিষয়ে বিএসএফের তরফে সরাসরি কোনও মন্তব্য করা হয়নি। ওই ব্যক্তিকে কুচলিবাড়ি থানার পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -

এই ঘটনার পর এলাকায় ফের চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। কারণ এলাকাবাসীরা মনে করছেন, সীমান্তে সর্বদাই বিএসএফের কড়া নজদারি রয়েছে। তারপরেও চোরাচালান এবং অবৈধ অনুপ্রবেশের চেষ্টা চলছে। গত রবিবারই মেখলিগঞ্জ ব্লকের চ্যাংরাবান্ধা সীমান্তের ভিআইপি মোড় এলাকায় একটি যাত্রীবাহী বাস থেকে একজন ভারতীয় সহ ন’জন বাংলাদেশের নাগরিককে আটক করে মেখলিগঞ্জ থানার পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে বিএসএফের ১৪৮ নম্বর ব্যাটালিয়ন কর্তৃপক্ষ। ওই নয় জন বাংলাদেশির বিরুদ্ধে কুচলিবাড়ি সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশের অভিযোগ রয়েছে। কাজের খোঁজে তারা ভারতে ঢুকেছিলেন বলে জিজ্ঞাসাবাদের পর পুলিশ ও বিএসএফ কর্তারা জানতে পেরেছেন। গ্রেপ্তার হওয়া ভারতীয় ওই সব বাংলাদেশিদের চোরাপথে ভারতে প্রবেশের ক্ষেত্রে সহায়তা করেছিল বলে অনুমান। অনেকেরই সন্দেহ মেখলিগঞ্জ সীমান্তের কুচলিবাড়ি, তিনবিঘা, বাগডোকরা-ফুলকাডাবরি প্রভৃতি এলাকায় এখনও কিছু মানুষ চোরাপথে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে মানুষজন পারাপার করে যাচ্ছেন। যাঁরা সীমান্ত এলাকায় দালাল হিসেবে পরিচিত। এই কাজের বিনিময়ে মোটাটাকাও তাঁরা আদায় করে নিচ্ছেন। রবিবার নয় জন বাংলাদেশি ধরা পড়ার পর বিষয়টি ফের প্রমাণিত হল বলেও মনে করা হচ্ছে। তবে সীমান্তে বর্তমানে বিএসএফের নিরাপত্তা ব্যবস্থার প্রশংসা করেছেন সীমান্ত এলাকার মানুষজন।

বিএসএফের জলপাইগুড়ি সেক্টরের এক অধিকারিক অবশ্য জানিয়েছেন, সীমান্তে সর্বদা বিএসএফের কড়া নজরদারি চলছে। এতে সাফল্যও মিলছে।