চোখ রাঙাচ্ছে করোনা, সংক্রামিতের মৃত্যুতে বাড়ছে উদ্বেগ

148

আসানসোল: দেশে ফের করোনা সংক্রমণ বাড়ছে। বিশেষত মহারাষ্ট্র, কেরলে সংক্রামিতের সংখ্যা বেড়ে চলেছে। ইতিমধ্যেই মহারাষ্ট্রের বেশ কিছু শহরে লকডাউন জারি করা হয়েছে। অন্যদিকে, গুজরাতের চারটি শহরে জারি হয়েছে নাইট কার্ফিউ। পশ্চিমবঙ্গের করোনা পরিস্থিতি আপাতত নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। কিন্তু মানুষ যেভাবে কোভিড বিধি উপেক্ষা করে চলাফেরা করছেন, তাতে চিন্তিত বিশেজ্ঞরা।

করোনা সংক্রামিত হয়ে সোমবার রাতে আসানসোলে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। আসানসোলের হিরাপুর থানার বার্ণপুরের রিভারসাইডের বাসিন্দা মৃত ওই বৃদ্ধের নাম অশোককুমার পাল (৬৪)। মঙ্গলবার দুপুরে আসানসোল জেলা হাসপাতালে দেহের ময়নাতদন্ত হয়। আসানসোল দক্ষিণ থানার পুলিশ জানিয়েছে, দেহ হিরাপুর থানার পুলিশকে দেওয়া হবে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের নির্দেশ মতো মঙ্গলবার রাতে পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে দেহ সৎকার করা হবে।

- Advertisement -

অন্যদিকে, এর আগে ওই বৃদ্ধের পরিবারের সদস্যদের লালার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। সেই সময় তাঁদের রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। ফের মৃতের স্ত্রী সহ পরিবারের বাকি সদস্যদের লালার নমুনা পরীক্ষা করা হবে। যদিও স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফে তাঁদের ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশাপাশি বৃদ্ধের বাড়ির আশপাশের এলাকা জীবাণু মুক্ত করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। যাঁরা বৃদ্ধের সংস্পর্শে এসেছিলেন তাঁদের হোম কোয়ারান্টিনে থাকতে বলা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বার্ণপুর ইস্কো কারখানার অবসরপ্রাপ্ত কর্মী অশোককুমার পাল ১২ দিন আগে অসুস্থ হয়ে বার্ণপুরের ইস্কো হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। কিছু উপসর্গ দেখা দেওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাঁর লালার নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠায়। গত ১২ মার্চ আরটিপিসিআর পরীক্ষায় তাঁর রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তারপর থেকে তিনি বাড়িতেই ছিলেন। সোমবার রাতে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে আসানসোল জেলা হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

প্রসঙ্গত, পশ্চিম বর্ধমান জেলায় এখনও পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৭০ জনের মৃত্যু হয়েছে। জেলায় সংক্রামিত হয়েছেন ১৬ হাজার ৫৫৭ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৬ হাজার ২৬৫ জন। জেলায় অ্যাকটিভ কেস সংখ্যা ১২৩টি। গত ২৪ ঘণ্টায় (সোমবার রাত পর্যন্ত) জেলায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৪ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১২ জন। স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, জেলায় এই মুহূর্তে ১০৮টি কেন্দ্র থেকে কোভিড ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে।