ক্লাবের দখলদারি নিয়ে সংঘর্ষে মৃত এক

133

বর্ধমান: ক্লাবের দখলদারি নিয়ে দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে মাথায় কুড়ুলের কোপ লেগে মৃত্যু হল এক ব্যক্তির। ঘটনায় জখম হয়েছেন আরও একজন। রবিবার রাতে বর্ধমানের ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের পীরবাহারানের ডাঙ্গাপাড়ায় ঘটনাটি ঘটেছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতের নাম মহম্মদ আকবর ওরফে কালো। সোমবার বর্ধমান হাসপাতাল মর্গে ওই ব্যক্তির দেহের ময়নাতদন্ত হয়। অন্যদিকে, মৃতের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে বর্ধমান থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, দীঘা বেড়াতে যাওয়ার জন্য স্থানীয় একটি ক্লবের একদল যুবক ফ্লেক্স টাঙায়। তার বিরোধীতা করে পাড়ার অপর একটি ক্লাবের কর্মকর্তা শেখ মুন্না ও তার দলবল সেই ফ্লেক্স ছিঁড়ে পুড়িয়ে দেয় এবং একটি গুমটি দোকানে ভাঙচুর চালিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয় বলে অভিযোগ। এসব নিয়ে রবিবার সকাল থেকেই এলাকায় উত্তেজনা চরমে ওঠে। ফ্লেক্স ছিঁড়ে পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনার প্রতিবাদে সরব হন মহম্মদ আকবর সহ একাংশ স্থানীয়। খবর পেয়ে এদিন সকালে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছোয়।

- Advertisement -

মৃতের আত্মীয় শেখ হাবিব বলেন, ‘পাড়ায় গণ্ডগোল হওয়ায় রবিবার সব বাড়িতে ঠিক মত রান্নাবান্না হয়নি। তাই রাতে এক জায়গায় তাদের ক্লাবের পাশে একটি বাড়িতে রান্না করে পাড়ায় ছেলেদের খাওয়ানো হচ্ছিল। ওই সময়ে হঠাৎই অন্য ক্লাবের একদল সশস্ত্র যুবক সেখানে পৌঁছে আক্রমণ করে। মহম্মদ আকবর ওরফে কালো মাটিতে পড়ে গেলে তার মাথায় কুড়ুলের কোপ লাগে। রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে রাতেই নিয়ে যাওয়া হয় বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে। সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়।’

মৃতের স্ত্রী পাকিজা বিবি জানিয়েছেন, তাঁর স্বামী বরাবরই তৃণমূল করত। ২৫ বছর ধরে তিনি পাড়ার ক্লাবের সম্পাদক ছিলেন। তার উপর যারা আক্রমণ চালিয়েছে তারা এখন বিজেপি করে। রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে তাঁর স্বামীকে প্রাণে মেরে দেওয়া হয়ে থাকতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি। মৃতের ভাই মহম্মদ হাবিব বলেন, ‘আগেও তাদের পাড়ায় ঝামেলা হয়েছিল। তখন তাঁদের বাড়িতেও আক্রমণ করা হয়েছিল। একইভাবে রবিবার রাতেও ক্লাব দখলকে কেন্দ্র করে পাড়ায় অশান্তি চরমে উঠল। তারজন্য অকালে তাঁর দাদাকে প্রাণ খোয়াতে হল।