দিনভর উঠোনে পড়ে রইল করোনায় মৃতের দেহ, স্বাস্থ্য দপ্তরের ভূমিকায় ক্ষোভ

154

পুরাতন মালদা: ভোর থেকে দুপুর দুটো পর্যন্ত বাড়ির উঠোনেই পড়ে রইল করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তির মৃতদেহ। ঘটনাকে ঘিরে শুক্রবার পুরাতন মালদার সাহাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের কালীতলা বাজার এলাকায় আতঙ্ক ছড়ায়। মৃতের নাম রাজকুমার দাস (৫০)। অভিযোগ, এদিন ভোরে মৃত্যু হওয়া ওই ব্যক্তির দেহ প্রশাসনের উদাসীনতায় দুপুর দুটো পর্যন্ত উঠোনে পড়ে থাকে। আতঙ্কে স্থানীয় বাসিন্দারা নিজেদের গৃহবন্দি করে রাখেন। স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান দেহ উদ্ধারের জন্য প্রশাসনের সমস্ত মহলে আবেদন জানিয়েও ব্যর্থ হন। শেষ পর্যন্ত জেলা শাসকের হস্তক্ষেপে দুপুর দুটো নাগাদ প্রশাসনের লোকজন দেহ সৎকারের জন্য নিয়ে যায়। হাঁফ ছেড়ে বাঁচেন বাসিন্দারা।

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, কালীতলা বাজার এলাকার বাসিন্দা পেশায় আইসক্রিম বিক্রেতা রাজকুমার দাস কয়েকদিন ধরে হালকা জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। সম্প্রতি তাঁর করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। বৃহস্পতিবার রাতে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে স্থানীয় মৌলপুর গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে সেখানে তাঁকে ভর্তি নেওয়া হয়নি অভিযোগ। হাসপাতাল থেকে ফিরে এলাকার একটি দোকানের বারান্দায় তাঁকে বসানো হয়। এদিন ভোরে সেখানেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন রাজকুমারবাবু।

- Advertisement -

স্থানীয় বাসিন্দা মিতালি দাস বলেন, ‘করোনা ধরা পড়ার পর শারীরিক অবস্থা ভালো না থাকলেও রাজকুমারবাবুকে হাসপাতালে ভর্তি নেওয়া হয়নি। গতকাল রাতে প্রবল শ্বাসকষ্ট সহ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানেও তাঁকে ভর্তি নেয়নি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তিনি সরকারি কোনও চিকিৎসাই পাননি। বিনা চিকিৎসাতেই মারা গিয়েছেন তিনি। এদিন ভোরে মারা গেলেও দুপুর পর্যন্ত দেহ নিয়ে যেতে প্রশাসনের কেউ আসেনি। আমরা ভীষণ আতঙ্কিত৷‘ যদিও এবিষয়ে স্বাস্থ্য দপ্তরের কোনও বক্তব্য মেলেনি।