আগুনে ভস্মীভূত বাড়ি, বিদ্যুৎ দপ্তরের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ

416

পুরাতন মালদা: ভয়াবহ আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেল গোটা বাড়ি। শনিবার দুপুরে ঘটনাটি ঘটেছে পুরাতন মালদা পুরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের লোলাবাগে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের সহযোগিতায় দমকল ও পুলিশ কর্মীরা প্রায় দু’ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে নগদ ৭০ হাজার টাকা সমেত বাড়ির সমস্ত আসবাব। বাড়ি লাগোয়া বিদ্যুতের খুঁটিতে শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লাগে বলে অভিযোগ উঠেছে।

- Advertisement -

পুরাতন মালদা পুরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের লোলাবাগ পাম্পিং স্টেশন লাগোয়া এলাকায় শনিবার একটি বাড়িতে আগুন লাগে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই বাড়িটি দীপঙ্কর ও শুভঙ্কর চাকি নামে দুই ব্যক্তির। এদিন দুপুরে যখন বাড়িতে কেউ ছিলেন না তখন আগুন লাগার ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, দীপঙ্করবাবুর মা নাতনির চিকিৎসার জন্য কলকাতায় রয়েছেন। চিকিৎসার খরচ বাবদ প্রায় ৭০ হাজার টাকা দুই ভাই দীপঙ্কর ও শুভঙ্কর ধার দেনা করে যোগার করে ঘরের মধ্যে বাক্সে রেখেছিলেন। এদিন দুপুরে তাদের বাড়ি থেকে আগুনের শিখা দেখতে পান প্রতিবেশীরা। মুহূর্তের মধ্যে আগুনের গ্রাসে চলে যায় গোটা বাড়ি। স্থানীয় বাসিন্দারা খবর দেন পুলিশ ও দমকলে। দমকলের একটি ইঞ্জিন ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগেই অবশ্য আগুন নেভানোর কাজে হাত লাগান স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশকর্মীরা। পরে দমকলের ইঞ্জিন পৌঁছালে প্রায় ঘণ্টা দুয়েকের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, বাড়ির পাশে থাকা একটি বিদ্যুতের খুঁটিতে শর্ট সার্কিট থেকেই আগুন ধরে যায় বাড়িটিতে। অগ্নিকাণ্ডের পর এদিন বিদ্যুৎ দপ্তরের কর্মীরা শর্ট সার্কিট সারানোর কাজ করতে গেলে এলাকার বাসিন্দারা তাদের ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। পরে আবার পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

দীপঙ্কর চাকি বলেন, ‘আমাদের এলাকায় বিদ্যুতে খুঁটিতে শর্ট সার্কিটের ঘটনা বারবার ঘটলেও বিদ্যুৎ দপ্তর থেকে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। আজ বাড়ির পাশে থাকা একটি বিদ্যুতের খুঁটি থেকেই আগুন লাগে। ভাগ্নির চিকিৎসার জন্য ৭০ হাজার টাকা ধার দেনা করে যোগার করেছিলাম। সব পুড়ে ছাই হয়ে গেল। মাথা গোঁজার জায়গাটুকুও নেই। আমাদের সব শেষ হয়ে গেল।’ দিনদুপুরে এমন অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায় লোলাবাগ এলাকায়। বিদ্যুৎ দপ্তর আগে থেকে সতর্ক হলে এমন ঘটনা ঘটত না বলেই জানিয়েছেন বাসিন্দারা। যদিও আগুন ঠিক কী কারণে লেগেছিল, তা দমকলের তরফে এখনও জানানো হয়নি।