শ্বশুর বাড়ির বিরুদ্ধে গৃহবধূকে পণের জন্য খুন করার অভিযোগ

473

হলদিবাড়ি, ৮ জুনঃ পণের বলি অন্তঃসত্তা এক নববধূ। সোমবার কোচবিহার জেলার হলদিবাড়ি ব্লকের কাশিয়াবাড়ি জয়ন্তী নগর এলাকায় ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়ায়।গৃহবধূর মৃত্যুর ঘটনায় শ্বশুর বাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ ওঠে। বিষয়টি নিয়ে হলদিবাড়ি থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়। হলদিবাড়ি থানার পুলিশ গৃহবধূর স্বামীকে আটক করে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ময়নাতদন্তের পর মৃতদেহ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে।

পুলিশ সূত্রের খবর, মৃত গৃহবধূর নাম লিপিকা মন্ডল (১৮)। সে ছোট থেকে উত্তর বড় হলদিবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের ঝাঁকুয়া পাড়ায় মামা বাড়িতে মানুষ হয়েছে। সেখান থেকেই ওই গ্রাম পঞ্চায়েতের জয়ন্তী নগর এলাকার বাসিন্দা শান্তিপদ রায়ের ছেলে সুব্রত রায়ের সঙ্গে লিপিকা প্রেমে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিল। গত ৪ মাস আগে ২ বাড়ির অমতে পালিয়ে গিয়ে তাঁরা বিয়ে করে নেয়। পরবর্তীতে সুব্রত রায়ের পরিবার নববধূকে স্বীকৃতি দেয়। গৃহবধূর মামা শ্যামল সিংহের অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই ভাগ্নির শ্বশুরবাড়ির লোকজন পণের জন্য ভাগ্নির ওপর শারীরিক নির্যাতন করত। বাপের বাড়ি থেকে টাকা আনার জন্য জোর করত। তাতে রাজি না হওয়ায়, এদিন তাঁর শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাঁর ভাগ্নিকে শ্বাসরোধ করে খুন করে। খবর পেয়ে লিপিকাকে হলদিবাড়ি গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে, কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁক মৃত বলে ঘোষণা করেন।

- Advertisement -

সোমবার সন্ধ্যায় লিপিকা মন্ডলের পরিবার তাঁর স্বামী সুব্রত রায়, শ্বশুর শান্তিপদ রায়, শাশুড়ি সন্ধ্যা রায়ের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবি জানানো হয়েছে। হলদিবাড়ি থানায় আইসি দেবাশীষ বসু জানান, লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মৃতার স্বামীকে আটক করা হয়েছে।