২০০ জন ছাত্রছাত্রীর জন্য স্কুলে ক্লাসরুম মাত্র একটি

213

নিবারণ দাস, টুঙ্গিদিঘি : স্কুলে একটি মাত্র ঘর। আর সেই ঘরেই ক্লাস করতে হচ্ছে স্কুলের প্রায় দুশোজনেরও বেশি ছাত্রছাত্রী। রায়গঞ্জ ব্লকের শীতগ্রাম পঞ্চায়েতের মহিগ্রাম প্রাথমিক বিদ্যালয় এই সমস্যার সম্মুখীন। শুধু পড়ুয়ারাই নয়, সমস্যায় এলাকাবাসী থেকে শুরু করে শিক্ষক-শিক্ষিকারাও।

মহিগ্রাম প্রাথমিক বিদ্যালয় উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ ব্লকের সাউথ সার্কেলের একটি বহু পুরোনো স্কুল। স্কুলে ছাত্র ও শিক্ষকের অভাব নেই। দুশোজনেরও বেশি ছাত্রছাত্রী পড়াশোনা করে। বর্তমান সমযে খুব কম সরকারি স্কুলেই এত ছাত্রছাত্রী দেখা যায়। রয়েছেন দুইজন পার্শ্বশিক্ষক সহ ১১জন শিক্ষক-শিক্ষিকা। কিন্তু স্কুলে নেই যথাযথ ক্লাসরুম। আর তাতেই সমস্যা হচ্ছে পড়াশোনার।

- Advertisement -

স্থানীয় বাসিন্দা রফিক আলমের অভিযোগ, এই স্কুলের ঘর  নিয়ে তীব্র সমস্যা রয়েছে। প্রায় দুশোজন ছাত্রছাত্রীদের একটা ঘরেই অত্যন্ত কষ্ট করে পড়াতে হয়। সরকার থেকে ঘরের জন্য টাকা আসে কিন্তু জমিদাতার উত্তরসূরিরা এখানে ঘর করতে দিচ্ছে না। যার ফলে অত্যন্ত সমস্যার মধ্যে দিযে চলছে আমাদের স্কুল। জমি সমস্যার জন্যই এটা হচ্ছে। আমরা এই সমস্যা সমাধানের জন্য পঞ্চায়েত সদস্য থেকে শুরু করে স্থানীয় মানুষ, রায়গঞ্জ সাউথ সার্কেলের এসআই সহ অনেকের কাছে অভিযোগ জানিয়েছি। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি।  সমস্যার কোনো সুরাহা হয়নি।

মহিগ্রাম প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সত্যেন্দ্রনাথ মাহাতো বলেন, আমাদের স্কুলে দুশোজনেরও বেশি ছাত্রছাত্রী রয়েছে। কিন্তু একটি মাত্র ক্লাস রুম। তাই অত্যন্ত কষ্ট করে ক্লাস নিতে হয়। ছাত্রছাত্রীদের উপস্থিত যখন একটু বেশি হয় তখন কখনও কখনও গাছের নীচে, কখনো অফিস ঘরে বসিয়ে ক্লাস নিতে হয়। তাতে পড়াশোনার খুব সমস্যা হচ্ছে। স্কুলের নামে নিজস্ব কোনো জমি না থাকার জন্য স্কুলে কোনো ঘর নির্মাণ করাও সম্ভব হচ্ছে না। স্কুলে কোনো নির্মাণের কাজ করতে নিলেই এসে বাধা দেন জমির মালিক  মৃত মোহাম্মদ হাফিজুদ্দিনের দুই ছেলে হবিব আলম ও নূর আলম। যার ফলে সমস্যা দেখা দিয়েছে। মিড-ডে মিলের রান্নার জন্যেও একটা ভালো জায়গা নেই। একটা জায়গায় চালা দিযে মিড-ডে মিল রান্নার কাজ করা হচ্ছে। প্রশাসনের কাছে আমরা বারবার জানিয়ে কোনো ফল পাইনি। যার ফলে স্কুলের সমস্যা আজও রয়ে গিয়েছে।

স্থানীয় পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য মনোরঞ্জন দাসের কাছে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই বিষয়ে আমার কাছে এখনো পর্যন্ত কেউ কিছু বলেননি। তাই স্কুলের এই সমস্যাটির ব্যপারে আমার সেরকম কিছু স্পষ্ট ধারণা নেই। তবে আমি খবর নেব। আমার পক্ষে যা যা করণীয় করব। এবিষযে রায়গঞ্জ সাউথ সার্কেলের এসআই সাব্বির আহমেদ জানান, শীতগ্রাম পঞ্চায়েতের মহিগ্রাম প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্লাসরুম সংক্রান্ত একটা বড়ো সমস্যা রয়েছে। জমি সংক্রান্ত সমস্যার জন্যই এটি হয়েছে। আমরা বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে দেখছি। বিকল্প জমি পাওয়া যায় কিনা সেদিকেও নজর রেখেছি। দেখি কত তাড়াতাড়ি এই সমস্যার সমাধান করা যায়। এবিষযে উত্তর দিনাজপুর জেলার জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শক (প্রাথমিক) দীপককুমার ভক্ত বলেন, স্কুলের সমস্যার বিষযে আমার কাছে এখনও কেউ কিছু জানাননি। স্কুলটির কী কী সমস্যা রয়েছে  তা লিখিতভাবে  স্কুলের তরফে থেকে জানানো হোক। তারপর অবশ্যই পদক্ষেপ নেওয়া হবে। ক্লাসরুমের সমস্যার জন্য কোনো স্কুল বন্ধ হবে তা হতে পারে না।