উত্তরবঙ্গ ব্যুরো, ১২ জুনঃ এনআরএস মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে জুনিয়ার ডাক্তারকে নিগ্রহের ঘটনায় জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে বন্ধ আউটডোর পরিসেবা। বুধবার সকাল থেকেই শিলিগুড়ি জেলা হাসপাতালে বন্ধ রয়েছে বহির্বিভাগ পরিসেবা। লাইনে দাঁড়িয়ে বহু মানুষ। পরিসেবা বন্ধ রাখায় ক্ষুব্ধ তাঁরা।

অন্যদিকে, জলপাইগুড়ি, ধূপগুড়ি হাসপাতালেও বন্ধ রাখা হয়েছে বহির্বিভাগ পরিসেবা। পাশাপাশি কোচবিহার সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বহির্বিভাগ বন্ধ করে রেখে প্রতিবাদ জানান চিকিৎসকরা। যার ফলে সকাল থেকেই দূর-দূরান্ত থেকে এসে চিকিৎসা পরিসেবা না পেয়ে ফিরে যেতে বাধ্য হন রোগীরা। জানা গিয়েছে, প্রতিদিন প্রায় দেড় থেকে দুই হাজার রোগী ওই হাসপাতালের বহির্বিভাগ থেকে পরিসেবা নিয়ে থাকেন। হাসপাতাল চত্বরে যাতে কোন রকম অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেজন্য সকাল থেকেই প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করা রয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বহির্বিভাগ বন্ধ থাকলেও জরুরি বিভাগ খোলা রয়েছে। কোন রোগীর অবস্থা গুরুতর হলে সেখান থেকেই পরিষেবা নেওয়া যাচ্ছে।

এনআরএস কান্ডের প্রতিবাদে মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালেও জরুরি বিভাগ ছাড়া বন্ধ ছিল আউটডোর পরিসেবা। ইন্ডিয়ান মেডিকেল অ্য়াসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে ১২ ঘন্টা কর্মবিরতির ডাক দেন চিকিৎসকরা। এদিন সংগঠনের পক্ষ থেকে মালদা শহরের সমস্ত নার্সিংহোমেও জরুরি পরিসেবা ছাড়া সমস্ত পরিসেবা বন্ধ রাখা হয়। ফলে সমস্যায় পড়েন মালদা সহ পাশ্ববর্তী জেলা থেকে চিকিৎসার জন্য আসা রোগী ও তাঁদের পরিবারের লোকেরা। পাশাপাশি চাঁচল সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালেও বেলা ১২টার পর থেকে আউটডোর পরিসেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়।