ভিস্তাডোম কোচে এবার ডুয়ার্স দেখার সুযোগ

615

প্রণব সূত্রধর, আলিপুরদুয়ার : আরাকু ভ্যালি রেলপথ, কোঙ্কন রেলওয়ে, কাশ্মীর ভ্যালি রেলপথ বা ইউনেসকোর হেরিটেজ তকমা পাওয়া দার্জিলিং হিমালয় টয়ট্রেনের সঙ্গে এক আসনে বসতে চলেছে বামনহাট-শিলিগুড়ি প্যাসেঞ্জার। শুনতে অবিশ্বাস্য লাগলেও আগামী অগাস্ট থেকে ডুয়ার্সের সবুজ জঙ্গল চিরে যাওয়া রেলপথে এই প্যাসেঞ্জার ট্রেনে পর্যটকদের জন্য জুড়ছে ভিস্তাডোম কোচ। ফলে পূর্ণিমার সন্ধ্যায় বা ভরা বর্ষায় ট্রেনে বসে ডুয়ার্সের জঙ্গলকে তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করার সুযোগ পাবেন রেলযাত্রীরা। শুধু তাই নয়, ভাড়ার ও শর্তের কারণে দার্জিলিংয়ে টয়ট্রেনের ভিস্তাডোম কোচ সাধারণ পর্যটকদের নাগালের বাইরে হলেও ডুয়ার্সের পথে ভিস্তাডোমে তাঁরা অনেক সহজে টিকিট কাটতে পারবেন। ভাড়াও থাকছে আমজনতার নাগালের পক্ষে। সেইসঙ্গে বেশ কিছু সুবিধাও দিতে চলেছে উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেল।

উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের চিফ পাবলিক রিলেশন অফিসার (সিপিআরও) শুভানন চন্দ বলেন, ভিস্তাডোম কোচ চালু হলে পর্যটনের বিকাশ ঘটবে। টয়ট্রেন যেমন দার্জিলিংয়ে পর্যটনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে তেমনি ভিস্তাডোম কোচ ডুয়ার্সের পর্যটন বিকাশে সহযোগিতা করবে। তবে, প্রাথমিকভাবে যেসব নির্দেশিকা রয়েছে ভিস্তাডোম কোচ এসে পৌঁছানোর পর নিয়ম কিছুটা পরিবর্তন হতে পারে।

- Advertisement -

এখনও পর্যন্ত করোনা সংক্রান্ত বিধিনিষেধের জেরে রাজ্যে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়নি। তবে, সংক্রমণের হার ক্রমশ কমতে থাকায় ট্রেনের সংখ্যা বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে পরবর্তীতে বামনহাট-শিলিগুড়ি প্যাসেঞ্জার চালু হলে তার সঙ্গে ভিস্তাডোম কোচ জোড়ার পরিকল্পনা রয়েছে রেলের। ডুয়ার্সের এই রেলপথের সৌন্দর্যের কথা মাথায় রেখে বহু আগেই ভিস্তাডোম কোচের জন্য আবেদন জানিয়েছিল উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেল কর্তৃপক্ষ। জুলাইতেই সেই কোচ আসছে, এমন নিশ্চয়তা পাওয়ায় আলিপুরদুয়ার ডিভিশনের রেলকর্তারাও খুশি। তাঁদের ধারণা, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে এই কোচের জন্যই ডুয়ার্সের রেলপথে পর্যটকদের ঢল নামবে। রেলের আলিপুরদুয়ার ডিভিশন সূত্রে জানা গিয়েছে, জুলাই মাসেই ভিস্তাডোম কোচ আলিপুরদুয়ারে পৌঁছে যাবে।

তবে, অগাস্ট মাস থেকে তা চালু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বামনহাট থেকে সকাল ৮.৩০ মিনিটে বামনহাট-শিলিগুড়ি প্যাসেঞ্জার ছেড়ে ১২টা নাগাদ আলিপুরদুয়ারে পৌঁছোবে। এখানে ভিস্তাডোম ট্রেনের সঙ্গে জোড়ার পর ১২.৫০ মিনিটে আলিপুরদুয়ার জংশন থেকে যাত্রা করে সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিটে শিলিগুড়ি পৌঁছোবে।

কাচের বিশাল জানলা, মাথার উপরে ছাদের অনেকটা কাচের তৈরি। শীতাতপনিয়ন্ত্রিত এমন ভিস্তাডোম কোচে বসে ডুয়ার্সের জঙ্গলের সৌন্দর্য দেখতে ভাড়া পড়বে ৭৫০ টাকা। এছাড়া জন্মদিন বা বিবাহবার্ষিকীর মতো কোনও অনুষ্ঠানের জন্যও প্রায় ৫০ হাজার টাকায় বুক করা যাবে ৪২ আসনের ভিস্তাডোম কোচ।  কয়েকজন যাত্রী ভিস্তাডোমের টিকিট কাটার পর কোনও সংস্থা বা কেউ ব্যক্তিগতভাবে সম্পূর্ণ কোচ বুক করলে টিকিট বাতিলের পুরো টাকা ফিরিয়ে দেওয়া হবে আগের যাত্রীদের। যাত্রীদের খাবারের ব্যবস্থা করবে ইন্ডিয়ান রেলওয়ে ক্যাটারিং অ্যান্ড টুরিজম কর্পোরেশন (আইআরসিটিসি)। তবে খাবারের দাম আলাদা দিতে হবে। জন্মদিন বা বিবাহবার্ষিকীর জন্য বুক করলে স্পেশাল ব্যবস্থা করবে রেল।

ভিস্তাডোমের পর্যটকরা যাতে ট্রেন ছাড়াও সড়কপথে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরতে যেতে সমস্যায় না পড়েন বা অতি সহজেই হোটেল বুক করতে পারেন তার জন্যও আইআরসিটিসির মাধ্যমে রেল সহযোগিতা করবে। ওই পর্যটকদের জন্য বিভিন্ন বেসরকারি পর্যটন সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করানোর ব্যবস্থা করছে রেল। রেলের তরফে আলিপুরদুয়ার ও শিলিগুড়ির একাধিক  হোটেল মালিকের  সঙ্গে  ইতিমধ্যেই  যোগাযোগ করা হয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ে এনিয়ে আলোচনাও হয়েছে। উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের আলিপুরদুয়ার ডিভিশনের সিনিয়ার ডিসিএম অমরমোহন ঠাকুর বলেন, পর্যটকদের কথা মাথায় রেখে এই ভিস্তাডোম কোচ অগাস্ট মাস থেকে চালু করার কথা রয়েছে। বিশেষ সামাজিক অনুষ্ঠানের জন্যও ভিস্তাডোম কোচ বুক করা যাবে। আইআরসিটিসি ছাড়াও হোটেল এবং বেসরকারি পর্যটন সংস্থার সঙ্গেও পর্যটকরা যোগাযোগ করতে পারবেন। এই বিষয়ে আইআরসিটিসি এবং হোটেল মালিকদের সঙ্গে প্রাথমিক আলোচনা হয়েছে।