জঙ্গিপুর, ২২ ফেব্রুয়ারিঃ রাস্তার কাজের মান খারাপ নিয়ে অভিযোগ করায় এক ব্যক্তিকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায়। অভিযোগ, মুর্শিদাবাদের রঘুনাথগঞ্জ ২ ব্লকের পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যা তানজিরা বেগমের স্বামী এমদাদুল হক ওই ব্যক্তিকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন। অভিযোগকারী রমজান শেখ স্থানীয় বিডিও এবং রঘুনাথগঞ্জ থানায় বিষয়টি নিয়ে লিখিত অভিযোগ করেন। ঘটনার তদন্ত চলছে।

রমজান শেখ বলেন, ‘স্থানীয় মিঠিপুর গ্রামে একটি রাস্তা নির্মাণের কাজ চলছে। সেই কাজের বরাত পেয়েছেন পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যা তানজিরা বেগমের স্বামী তথা স্থানীয় তৃণমূল নেতা এমদাদুল শেখ। কিন্তু নিয়ম অনুযায়ী পঞ্চায়েত সদস্যার স্বামী হওয়ায় বা তাঁর কোনও নিকটাত্মীয় এই কাজের বরাত পেতে পারেন না। এছাড়া এলাকায় নিজেকে তৃণমূলের প্রভাবশালী নেতা হিসেবে পরিচয় দিয়ে বরাত পেয়ে রাস্তার কাজের গুণগত মান খারাপ করছেন তিনি। রাস্তার কাজের সঠিক কাগজ দেখতে চাইলে তিনি কোনওভাবেই তা দেখাতে চাইছেন না। এমনকি বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে গেলে তিনি বলেন, যা করার করতে পারো। আমি যেভাবে কাজ করছি সেভাবেই কাজ হবে।’ জানা গিয়েছে, ওই ব্যক্তি চলতি মাসের ১০ তারিখ বিষয়টি নিয়ে রঘুনাথগঞ্জ ২ ব্লকের বিডিওকে লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছিলেন। এরপরই এমদাদুল হক সহ কয়েকজন মিলে রমজান শেখকে মারধর করে এবং হুমকি দিয়ে তাঁকে একটি কাগজে সই করিয়ে নেয় বলে অভিযোগ। তিনি জানতে পারেন, তাঁর দেওয়া অভিযোগটি প্রত্যাহার করা হয়েছে। ফের তিনি ব্লক অফিসে অভিযোগ জমা দেন। পাশাপাশি প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ায় রঘুনাথগঞ্জ থানায়ও লিখিত অভিযোগ করা হয়। কিন্তু প্রশাসন এখনও পর্যন্ত কোনও ব্যবস্থা নেয়নি বলে জানিয়েছেন তিনি। এই বিষয়ে পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যা তানজিরা বেগমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি। এই বিষয়ে অভিযুক্ত এমদাদুল শেখের বক্তব্য, ‘আমার বিরুদ্ধে ওঠা এই ধরণের সমস্ত অভিযোগ মিথ্যে। সরকারি নিয়ম মেনেই আমি ঠিকাদারির কাজ করছি। কোনও ভুল থাকলে প্রশাসন তার ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’ এই বিষয়ে পুলিশের তরফে কোনও মন্তব্য করা হয়নি। রঘুনাথগঞ্জ ২ ব্লকের বিডিও মৃণাল মজুমদার জানিয়েছেন, আমরা এই বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনার তদন্ত করা হবে।