রাস্তা সারাইয়ে হাত লাগালেন পঞ্চায়েত সদস্য

পঙ্কজ মহন্ত, বালুরঘাট : দীর্ঘদিন ধরে বেহাল রাস্তা। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে রাস্তা সারাইয়ের উদ্যোগও নেওয়া হয়। রাস্তা মেরামত করতে ফেলা হয় বালি। কিন্তু কোনো শ্রমিক নিয়োগ করা হয়নি। ফলে আটকে যায় কাজ। সমস্যা মেটাতে তাই এগিয়ে এলেন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য নিজেই। পাশে দাঁড়ালেন গ্রামবাসীরা। তাঁদের মিলিত প্রচেষ্টাতেই রাস্তা মেরামতি শুরু হয়। ঘটনাটি ঘটেছে বালুরঘাট সংলগ্ন বোয়ালদার এলাকায়। সাধারণ মানুষ নিজেরাই রাস্তা সংস্কার শুরু করায় অবশ্য টনক নড়ে পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষের। দ্রুত রাস্তার কাজের জন্য শ্রমিক দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন পঞ্চায়েত প্রধান মৌসুমি রায়।

বালুরঘাট শহর সংলগ্ন বোয়ালদার থেকে লক্ষীনারায়ণ গ্রাম পর্যন্ত রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরেই বেহাল। বহু অভিযোগের পর টনক নড়ে পঞ্চায়েতের। কিন্তু তাতেও ঘটেছে বিপত্তি। দুদিন আগে পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষের নির্দেশে কয়েক গাড়ি বালি রাস্তার ওপরেই ফেলে রাখা হয়। কিন্তু সেগুলো রাস্তায় যথাযথভাবে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য কোনো শ্রমিক নিয়োগ করা হয়নি। ফলে ওই রাস্তায়  যাতায়াত বন্ধ হয়ে যায় বলে অভিযোগ। ৬ নম্বর বোয়ালদার পঞ্চায়েতের সদস্য অনুকূল দাস জানান, রাস্তার এমনিতেই দুর্দশা। তার মধ্যে বর্ষায় আমাদের এই রাস্তা যাতায়াতের অযোগ্য হয়ে ওঠে। অনেক অনুযোগ অভিযোগের পরে সাড়া মিলেছে কর্তৃক্ষের তরফ থেকে। কিন্তু রাস্তায় বালি ফেলে গেলেও, তা সরানোর শ্রমিক দেয়নি। ফলে রাস্তা অচল হয়ে যায়। আমি পঞ্চায়েত সদস্য বলে বাসিন্দারা আমার কাছে অভিযোগ করে। অগত্যা আমি নিজেই কাজে হাত লাগাই। সাথে বাসিন্দাদেরও পেয়েছি। এর আগেও এরকম ঘটনা ঘটেছে। আমাকে সরকারি কাজে হাত লাগাতে হয়েছে।

- Advertisement -

পঞ্চায়েত প্রধান মৌসুমি রায়ের কাছে তিনি শ্রমিক দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন বলে জানান। দ্রুত শ্রমিক দেওয়ার আশ্বাসও দিয়েছেন তিনি। অনুকূলবাবু আরও বলেন, কদমতলা থেকে ভ্যারেন্ডা গ্রাম পর্যন্ত রাস্তার অবস্থা অত্যন্ত শোচনীয। আমরা দীর্ঘদিন ধরে হাজার অভিযোগ করা সত্ত্বেও কর্ণপাত করছে না তৃণমূল শাসিত পঞ্চায়েত। ফলে সমস্যায় পড়েছেন সাধারণ মানুষ।