পলাশবাড়ির একাংশকে কনটেনমেন্ট জোন করা হল

323
পলাশবাড়ির করোনা আক্রান্ত পাড়ায় বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে কনটেনমেন্ট জোন করা হচ্ছে।

পলাশবাড়ি: একজন পুলিশকর্মী ও দু’জন সিভিক ভলান্টিয়ার করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় পলাশবাড়ির একাংশ এলাকাকে কনটেনমেন্ট জোন ঘোষণা করল আলিপুরদুয়ার জেলা প্রশাসন। বুধবার শিলবাড়িহাট বাজারের পাশে আক্রান্তদের পাড়ার দু’দিকের রাস্তার মুখে বাঁশের ব্যারিকেড করে দেওয়া হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য তথা পূর্ব কাঁঠালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান সৌরভ পাল, শিলবাড়িহাট প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান প্রসেঞ্জিৎ দত্ত। প্রশাসনের তরফে কনটেনমেন্ট জোনের বাসিন্দাদের জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, এখন কেউ বাঁশের ব্যাড়িকেডের বাইরে বের হতে পারবে না। বাইরের কেউ ব্যারিকেড টপকে কনটেনমেন্ট জোনের ভিতরে ঢুকতে পারবে না।

প্রসঙ্গত, গত শনিবার রাতে শিলিগুড়ি ভক্তিনগর থানার কনস্টেবল পদে কর্মরত পলাশবাড়ির বাসিন্দা এক পুলিশকর্মী করোনায় আক্রান্ত হন। তার লালা নমুনা রিপোর্ট পাওয়ার আগেই তিনি বাড়িতে এলাকায় ঘোরাফেরা করেন। এদিকে সোমবার রাতে একই এলাকার দু’জন সিভিক ভলান্টিয়ার করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। এজন্য মঙ্গলবার শিলবাড়িহাট প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও পূর্ব কাঁঠালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত দপ্তরের সামনে থেকে স্থানীয় ১২৬ জনের লালার নমুনা সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য দপ্তর। এখন এই রিপোর্ট পাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

- Advertisement -

এদিকে বুধবার পলাশবাড়ি এলাকাতেই জাতীয় সড়কের ধারে একটি পিপিই কিট পড়ে থাকতে দেখা যায়। এ নিয়েও এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে। অন্যদিকে যে দু’জন সিভিক ভলান্টিয়ার আক্রান্ত হয়েছেন তাঁদের দ্রুত সুস্থ হওয়ার কামনা করছেন পলাশবাড়ির বাসিন্দারা।উপপ্রধান সৌরভ পাল বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে প্রথম থেকে দু’জন সিভিক ভলান্টিয়ার মানুষের স্বার্থে করোনা মোকাবিলায় কাজ করে গিয়েছেন। এই কাজ করতে গিয়েই হয়তো তারা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। ওদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করছি।’ তবে উপসর্গ না থাকায় ওই দুজন সিভিক ভলান্টিয়ারকে শিলতোর্ষার সেফ হাউসে রাখা হয়েছে।