বর্ধমান, ৯ ডিসেম্বরঃ রাজ্যে বিজ্ঞান চর্চা ও গবেষণায় অগ্রগতি এনেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে চতুর্থ আঞ্চলিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কংগ্রেসের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে এমনটাই বললেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘বিজ্ঞান চর্চা ও গবেষণার ওপর যে গুরুত্ব দেওয়ার কথা ছিল তা দীর্ঘদিনই দেওয়া হয়নি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর বিজ্ঞান চর্চা ও গবেষণার ওপর জোর দেন। এরপর থেকে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি দপ্তর ছাত্র ও যুবদের মধ্যে বিজ্ঞান বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে উদ্যোগী হয়। গবেষণা ও বিজ্ঞান চর্চা এগিয়ে নিয়ে যেতে এবার বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় রিজিওনাল কনফারেন্স করেছে। যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।’

পার্থবাবু বলেন, ‘বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির বিকাশ ছাড়া মানুষের সভ্যতা অগ্রসর হতে পারত না। বিজ্ঞান চেতনার অভাব একটি দেশের উন্নতির পথে সবচেয়ে বড়ো প্রতিবন্ধকতা হয়ে দাঁড়ায়। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কংগ্রেসে উপস্থিত বিজ্ঞানী ও গবেষকরা তাঁদের গবেষণালব্ধ জ্ঞান এই কংগ্রেসে পেশ করবেন। আমি নিশ্চিত বিজ্ঞানীদের গবেষণা থেকে আমরা সমৃদ্ধ হবো।’

বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর মাঝেমধ্যেই ছাত্র আন্দোলন ঘিরে উত্তাল হয়ে ওঠে। পড়ুয়াদের কথায় কথায় আন্দোলনে সামিল হওয়া নিয়ে এদিন কড়া বার্তা দেন শিক্ষামন্ত্রী। একইসঙ্গে তিনি সঠিক সময়ে রেজাল্ট বের করার বিষয়ে সক্রিয় হওয়ার কথা বলেন উপাচার্যকে। শিক্ষামন্ত্রী জানান, ফল প্রকাশে দেরি হওয়া নিয়ে শুধুমাত্র এজেন্সির ঘাড়ে দায় চাপিয়ে এড়িয়ে গেলে হবে না। উপাচার্যকেই গোটা বিষয়টি দেখতে হবে। ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশ্যে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘তোমাদের প্রতিদিন ক্লাস করতে হবে। ক্লাস ফাঁকি দিয়ে তারপর উপাচার্যকে ঘেরাও করা চলবে না।’

এদিন শিক্ষামন্ত্রী ছাড়াও উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ, মন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়, বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিমাইচন্দ্র সাহা প্রমুখ। বিজ্ঞান কংগ্রেসে দেশ ও রাজ্যের বহু বিজ্ঞানী ও গবেষক অংশ নিচ্ছেন বলেও বিশ্ববিদ্যালয় তরফে জানানো হয়েছে।