বাগডোগরা বিমানবন্দরে হয়রানির শিকার যাত্রীরা

716

বাগডোগরা: সিকিউরিটি চেকিংয়ের লাইনে যাত্রী ভিড় উপচে পড়ায় সোমবার বিশৃঙ্খলা তৈরি হল বাগডোগরা বিমানবন্দরে। ঘন কুয়াশার জেরে কয়েকদিনে বেশ কিছু ফ্লাইট বাতিল হয়েছে। এদিন কুয়াশা না থাকায় সকাল থেকে এক এক করে বিমান নামতে থাকে বাগডোগরায়। সব ফ্লাইটেই ঠাসা যাত্রী ছিল। তবে ১০-১৫ মিনিটের ব্যবধানে প্রতিটি বিমান ছাড়ায় সিকিউরিটি চেকিংয়ের লাইনে ভিড় উপচে পড়ে। তৈরি হয় বিশৃঙ্খলা। চরম হয়রানির শিকার হতে হয় যাত্রীদের। যদিও বিমানবন্দরের ডিরেক্টর জানিয়েছেন, এব্যাপারে তাঁকে কেউ কোনও অভিযোগ জানায়নি।

বিমানযাত্রীদের একাংশ জানিয়েছেন, সিকিউরিটি চেকিংয়ের লাইন একটা সময় দোতলা ছাড়িয়ে নীচে নেমে আসে। ফ্লাইট মিস করার ভয়ে অনেকেই সহযাত্রী, বিমানকর্মী এবং সিআইএসএফ কর্মীদের সঙ্গে তর্কাতর্কিতেও জড়িয়ে পড়েন। এয়ার এশিয়ার কলকাতাগামী বিমানের যাত্রী বিভাস চক্রবর্তী ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে বলেন, ‘বাগডোগরা বিমানবন্দরে একের পর নতুন ফ্লাইট দেওয়া হচ্ছে, যা উত্তরবঙ্গবাসীর কাছে খুবই ভালো খবর। কিন্তু বিমানবন্দরের পরিকাঠামোগত উন্নয়নে জোর দেওয়া হচ্ছে না।‘

- Advertisement -

বিভাসবাবু আরও বলেন, ‘সিকিউরিটি চেকের লাইনে দাঁড়িয়ে অনেকেই তর্কাতর্কিতে জড়িয়ে পড়ছেন। তা আবার অনেক সময় হাতাহাতির পর্যায়ে পৌঁছে যাচ্ছে। কেউ না কেউ প্রতিদিন ফ্লাইট মিস করছেন। এদিন আমি ৯:৪০-এর ফ্লাইটের জন্য ৭:৩০-এ বিমানবন্দরে পৌঁছেছিলাম। কিন্তু তারপরও ফ্লাইট প্রায় মিস হতে যাচ্ছিল। সঙ্গে বয়স্ক বাবাও ছিলেন। উনি হার্টের রোগী। আমার ভয় হচ্ছিল টেনশনে কোনও অঘটন না ঘটে যায়।’ বিভাসবাবুর মতো আরও একই অভিজ্ঞতা আরও অনেকেরই।

বাগডোগরা বিমানবন্দরের ডিরেক্টর সুব্রহ্মণি পি বলেন, ’এক সঙ্গে অল্প সময়ের ব্যবধানে উড়ান থাকলে ভিড় বেশি হয়। এবিষয়ে আমাকে কেউ কোনও অভিযোগ জানায়নি।’