আসলে সন্তান কতজন, জানেন না পেলে

সাও পাওলো : বিশ্ব ফুটবলে ব্যাডবয়দের নাম উঠলে প্রথমেই ভোট যায় জর্জ বেস্ট বা বর্তমান সময়ে নেইমারদের দিকে। বিশেষত নিজের গ্ল্যামারকে কাজে লাগিয়ে একের পর এক নারীর সঙ্গে সম্পর্কে জড়ানো নিয়ে সুনাম আছে তাঁদের।

কিন্তু নেইমারের পূর্বসুরী পেলেও যে একই ক্লাবের সদস্য! সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে পেলে যা বলেছেন, তাতে গোটা ফুটবল বিশ্বের চোখ কপালে। এমনিতে তিনবার বিয়ে করেছেন। তার বাইরে ফুটবলার জীবনে প্রেম-সম্পর্ক নিয়ে প্রশ্নে পেলের সটান জবাব, আমার সন্তান আদতে কতজন, তা নিজেই জানি না। তবে একের পর এক সম্পর্কে জড়ালেও কারও কাছে কখনও মিথ্যে বলেননি বলে সাফাইও দিয়েছেন এই ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তী।

- Advertisement -

পেলের কথায়, খেলোয়ার জীবনে অনেকের সঙ্গেই সম্পর্কে জড়িয়েছি। অনেক সময় সেই সম্পর্ক একটু বেশিই গভীর হওয়ায় বহু বান্ধবীর গর্ভেই আমার সন্তান আসে। প্রথমে সেসব খবর আমি জানতেই পারিনি। পরবর্তীতে তাদের কথা শুনেছি। এমনকি আমার আসলে কতজন সন্তান, তা জানি না। এমনিতে পেলের সাত সন্তানের কথা জানা গিয়েছে। ১৯৬৬ সালে দীর্ঘদিনের বান্ধবী রোজমেরি ডস রেইস শোলবিকে বিয়ে করেন পেলে। ১৯৯৪ সালে আজিরিয়া নাসিমেন্টোর সঙ্গে বিয়ে পিড়িতে বসেন। ২০০৮ সালে তাঁর সঙ্গে বিচ্ছেদের পর ২০১৬ সালে মার্সিয়া আওকিকে বিয়ে করেন পেলে। তখন তাঁর বয়স ৭৫, মার্সিয়ার ৫০।

রোজমেরির সঙ্গে বিয়েটা অল্পবয়সের ভুল বলে জানিয়েছেন পেলে। তাঁর কথায়, আমরা ভালো বন্ধু ছিলাম। তবে ওর প্রতি আমার ভালোবাসা তেমন তীব্র ছিল না। ফুটবল কেরিয়ারের মধ্যগগনে থেকে বহু মহিলা অনুরাগীর সঙ্গেই বিছানায় কাটিয়েছেন পেলে। তবে কখনও রোজমেরিকে মিথ্যে বলেননি বলে দাবি তাঁর। বললেন, আমার স্ত্রী, আমার প্রথম প্রেমিকা আমার সমস্ত সম্পর্কের কথাই জানত। আমি কখনও এসব নিয়ে মিথ্যে বলিনি বা কিছু লুকোইনি। রোজমেরি ও পেলের দুই মেয়ে কেলি ও জেনিফার এবং এক ছেলে এডিনহো। ১৯৮২ সালে এই দম্পতির বিচ্ছেদ হয়।

রোজমেরির সঙ্গে বিয়ের আগে আনিজিয়া মাচাদো নামে এক পরিচারিকার সঙ্গে সম্পর্ক ছিল পেলের। তাঁদের মেয়ে সান্দ্রা মাচাদো পিতৃত্ব সংক্রান্ত বিষয়ে পেলের বিরুদ্ধে মামলা করে জিতেছিলেন। কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে পেলে তাঁকে স্বীকৃতি দেননি। এমনকি ২০০৬ সালে মাত্র ৪২ বছর বয়সে সান্দ্রার মৃত্যুর পরও পেলে তাঁকে দেখতে যাননি। সান্দ্রার লেখা বই দ্য ডটার পেলে নেভার ওয়ান্টেড একসময় বেশ আলোড়ন ফেলেছিল। সাংবাদিক লেনিতা কার্টজের সঙ্গেও সম্পর্ক ছিল পেলের। তাঁদের মেয়ের নাম ফ্লাভিয়া কার্টজ।