সুবীর মহন্ত, বালুরঘাট : আত্রেয়ী খাঁড়ির ওপর ভেঙে ঝুলে থাকা বিপজ্জনক আয়রন ব্রিজ দিয়ে চলছে ঝুঁকির পারাপার। পুরসভা ও পুলিশের তরফে সেতুর দুদিকের মুখ বন্ধ করে দেওয়া হলেও সেই ফোঁকর গলিয়ে ব্রিজে উঠে পড়ছে পথচারীরা। দিনভর পারাপার চলছে ওই ব্রিজ দিয়ে। যে কোনো সময় ওই ব্রিজ ভেঙে বড়োসড়ো দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বাসিন্দারা। তারা ওই ভাঙা সেতুতে চলাচল করতে পথচারীদের বাধা দিলেও সেই বাধায় কেউ কর্ণপাত করছে না। উলটে এনিয়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে বিবাদও হচ্ছে পথচারীদের। স্থানীয়দের দাবি, প্রশাসন দ্রুত ওই ব্রিজ সংস্কার করুক অথবা নতুন ব্রিজ তৈরি করার প্রক্রিয়া শুরু করুক।

শহরের মাঝ বরাবর বয়ে যাওয়া আত্রেয়ী খাঁড়ির ওপর ২০০৩ সালে গড়ে উঠেছিল লোহার তৈরি একটি ফুট ব্রিজ। শহরের উত্তর ও দক্ষিণ অংশের মধ্যে যোগাযোগের সুবিধার জন্যই শর্টকার্ট এই হাঁটাপথ তৈরি করা হয়। দৈর্ঘ্যে ৭৫ মিটার ও প্রস্থে ২ মিটার এই ব্রিজটি তৈরি করতে সেই সময় পূর্তদপ্তর খরচ করেছিল ১৮ লক্ষ টাকা। উত্তর অংশের ডাকবাংলো পাড়ার সঙ্গে দক্ষিণের বাজার এলাকাকে সংযুক্ত করে এই ফুট ব্রিজটি। ফলে পথচারীদের শহরের বড়ো বাজারে যাওয়ার পথ সুগম হয়।

- Advertisement -

কিন্তু সংস্কারের অভাবে সেই ফুটব্রিজটি দীর্ঘদিন ধরেই ভগ্নপ্রায় অবস্থায় ছিল। লোহার তৈরি এই ব্রিজের অনেক অংশে মরচে পড়ে যায়। নীচের পাটাতন ও ওপরের রেলিং-এর বহু জায়গা ভেঙে গিয়েছিল। এই বিষয়টি বেশ কয়েবার তুলে ধরে উত্তরবঙ্গ সংবাদ। প্রশাসন শুধুমাত্র ব্রিজের সামনে সতর্কীকরণ ফ্লেক্স লাগিয়ে মোটরবাইক ও অন্য বাহনের যাতায়াত নিষিদ্ধ করেছিল। কংক্রিটের দেয়াল তুলে পথ আটকানোর চেষ্টাও হয়েছিল। কিন্তু পথচারীরা সেই কংক্রিটের দেওয়াল ভেঙেই ব্রিজ দিয়ে চলাচল শুরু করেছিল। এর পরেও প্রশাসন ওই ব্রিজ সংস্কারের পথে যায়নি। শেষ পর্যন্ত আশঙ্কা সত্যি করে গত বৃহস্পতিবার ভেঙে ঝুলে যায় ব্রিজটি। বন্ধ হয়ে যায় শহরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যোগাযোগ ব্যবস্থা। পুরসভার তরফে দ্রুত সেতুর দুদিকের মুখ বন্ধ করে দেওয়া হয়। পুলিশের তরফেও ব্যারিকেড করে সেতু সিল করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তারপরেও সেই ব্যারিকেড টপকে বিপজ্জনক ব্রিজের ওপর দিয়ে চলাচল করছেন পথচারীরা।

স্থানীয় বাসিন্দা আরতি বসাক বলেন, ব্রিজটি ভেঙে এবং ঝুলে বিপজ্জনক অবস্থায় রয়েছে। এর মধ্যে দিয়ে ব্যারিকেড টপকে পথচারীরা ব্রিজে চলাফেরা করছেন। যে কোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। প্রশাসনের উচিত এই ব্রিজের ওপর দিয়ে চলাচল বন্ধ করা। দ্রুত এই ব্রিজ সংস্কার অথবা নতুন ব্রিজ তৈরির পরিকল্পনা নেওয়া উচিত প্রশাসনের। এপ্রসঙ্গে বালুরঘাট পুরসভার ভারপ্রাপ্ত প্রশাসক গোবিন্দ দত্ত বলেন, আমরা ওই ব্রিজের ওপর দিয়ে চলাচল নিষিদ্ধ করেছি। তবুও মানুষ সচেতন হচ্ছেন না। আমি পুলিশকে বলব বিষয়টি দেখতে।