স্বাস্থ্যকর্মীকে বাড়ি ছাড়া করতে শিশুপুত্রকে খুনের হুমকির অভিযোগ বাড়ির মালিকের বিরুদ্ধে

351

বিশ্বজিৎ সরকার, রায়গঞ্জ: রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের আইসোলেশন বিভাগে করোনায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা করা হয়। তার পাশেই রয়েছে মেডিকেল কলেজের ব্লাড ব্যাংক। সেখানেই ফার্মাসিস্ট হিসেবে কাজ করেন রুমাঈসা পারভিন নামের এক মহিলা। তাঁর অভিযোগ, মেডিকেল কলেজের স্বাস্থ্যকর্মী হওয়ায় বাড়ির মালিক তাঁকে বাড়ি ছাড়ার হুমকি দিয়েছেন। বাড়ি না ছাড়লে দু’বছরের পুত্র সন্তানকে গলা টিপে খুন করা হবে বলে হুমকির অভিযোগ। এই ঘটনায় বাড়ির মালিক বেলাল আহমেদ এবং তার ছেলে রানা আহমেদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেছেন মেডিকেল কলেজের ওই স্বাস্থ্যকর্মী। এরই সঙ্গে মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ, সহকারী অধ্যক্ষ ও নোডাল অফিসারকে লিখিতভাবে হুমকির কথা জানান তিনি।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে রায়গঞ্জ থানার কর্ণজোড়া ফাঁড়ির অন্তর্গত বোগ্ৰাম এলাকায়। পুলিশ সুপারের অফিসের ঢিলছোঁড়া দূরত্বে তার ভাড়াবাড়ি। বাড়ির মালিকের এহেন হুমকিতে রীতিমতো হতবাক মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ। স্বাস্থ্যকর্মীর বক্তব্য, দীর্ঘ এক বছর ধরে পুলিশ সুপারের অফিসের বিপরীত বাড়িতে ভাড়া রয়েছি। করোনার পর থেকেই লাগাতার হুমকি দেওয়া হয়। বাড়ি ছাড়ার ফতোয়া জারি করা হয়। কিন্তু এই মুহূর্তে কোথায় বাড়ি ভাড়া পাওয়া যাবে। স্বামী কর্মসূত্রে শিলিগুড়ি থাকেন। এই নিয়ে চিন্তিত এই মহিলা। এখানে বাবা-মায়ের সঙ্গে ওই স্বাস্থ্যকর্মী বাড়ি ভাড়া করে থাকেন। অভিযোগ, বৃহস্পতিবার দুপুরে ছাদে কাপড় মেলতে গেলে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়া হয় ওই স্বাস্থ্যকর্মীর মাকে। খুনের হুমকি দেওয়া হয় দুই বছরের শিশুকে। আতঙ্কে মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষের পাশাপাশি পুলিশের দ্বারস্থ হন ওই মহিলা।

- Advertisement -

রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের নোডাল অফিসার বিপ্লব হালদার বলেন, ‘আমাদের ওই স্বাস্থ্যকর্মীর সঙ্গে যে ধরনের ঘটনা ঘটেছে তা একদমই কাম্য নয়। দিন-রাত মানুষের সেবা করে চলেছি। পরিবারের ওপর এই ধরনের হুমকি মোটেই সঠিক কাজ নয়। সমস্ত বিষয় পুলিশকে জানানো হয়েছে। পুলিশ এই বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।’ এই প্রসঙ্গে জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক রবীন্দ্রনাথ প্রধান বলেন, ‘যেসব স্বাস্থ্যকর্মী করোনা মোকাবিলার পাশাপাশি অন্যান্য কাজ করে চলেছেন, তাদের নানান সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। এই ধরনের ঘটনা একেবারেই মেনে নেওয়া যায় না। ওই ফার্মাসিস্টের ঘটনা জানতে পেরে পুলিশকে জানানো হয়েছে।’

জেলা পুলিশের কর্তা প্রসাদ প্রধান বলেন, ‘ঘটনাটি আইসিকে জানানো হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব বাড়ির মালিক সহ তিন জনকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’ রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ দিলীপ কুমার পাল বলেন, ‘রুমাঈসা পারভীন আমাদের মেডিকেল কলেজের ব্লাড ব্যাংকের ফার্মাসিস্ট পদে কর্মরত। আমাকে বিষয়টি জানিয়েছে আমি পুলিশ সুপারও জেলাশাসককে ফোন মারফত জানিয়েছি।’ রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের অ্যাসিস্ট্যান্ট সুপার অভিক মাইতি বলেন, ‘সমস্ত বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়েছে।’