ওদলাবাড়ি : ভিড়ের চাপে ওদলাবাড়ি গ্রামীণ হাসপাতালের বহির্বিভাগে চিকিৎসা করাতে এসে সমস্যায় পড়ছেন রোগী এবং রোগীর পরিজনরা। সোম থেকে শনি প্রায় প্রতিদিনই সকাল ন’টা থেকে দুপুর দুটো পর্যন্ত এই হাসপাতালের আউটডোরে রোগীদের চিকিৎসায় পালা করে দুজন চিকিৎসক ব্যস্ত থাকেন। ভিড়ের চাপে দীর্ঘক্ষণ রোগীদের আউটডোরের লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে অপেক্ষা করতে হয়। হাসপাতালের পুরনো বিল্ডিংয়ের অপরিসর করিডোরে সেই সময় পা ফেলার জায়গা থাকে না। লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে অসুস্থ রোগীরা আরও অসুস্থ হয়ে পড়লেও তাদের জন্য বসার ব্যাবস্থা নেই। বর্তমান পরিস্থিতিতে ক্ষোভ বাড়ছে রোগীদের।

আউটডোরের লাইনে অপেক্ষা করার সময় আয়েষা সরকার বলেন, ‘অনেকক্ষণ ধরে লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। একটু বসার ব্যবস্থা হলে সুবিধা হত।’ অন্য রোগীরাও তাঁর কথায় সহমত জানান। রোগীদের চাপে নাজেহাল চিকিৎসকরাও। তাঁরাও সুষ্ঠু পরিসেবার স্বার্থে এই ব্যবস্থার এবার পরিবর্তন চাইছেন। হাসপাতালের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিএমওএইচ প্রিয়াঙ্কু জানা বলেন, ‘গড়ে প্রতিদিন প্রায় সাড়ে তিনশো রুগীকে আউটডোর থেকে পরিসেবা দেওয়া হয়। যে কারনে দীর্ঘ সময় ধরে একেকজন রোগীকে লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে হয়। এই অবস্থায় রোগীদের অন্তত বসার ব্যবস্থা করা অত্যন্ত জরুরি। বিষয়টি হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান তথা মালের বিধায়ক বুলু চিকবরইককে চিঠি লিখে তাঁর এলাকা উন্নয়ন তহবিল থেকে বরাদ্দ অনুমোদনের জন্য আবেদন করেছি।’

৩০ শয্যার হাসপাতালের নতুন দোতলা  ভবন চালু হওয়ার পর গতবছর সুশ্রী কায়াকল্প প্রতিযোগিতায় প্রথমবার অংশ নিয়ে রাজ্যের মধ্যে সপ্তম স্থান অর্জন করার পর এবারও যাতে ভালো ফল করা যায় সে চেষ্টায় খামতি রাখতে চাইছেন না বিএমওএইচ। তিনি বলেন, ‘পরিদর্শক দলের পরামর্শ মতো হাসপাতালের পরিকাঠামোগত কিছু উন্নয়নমূলক ও সৌন্দর্য্যায়নে কিছু কাজ  করা জরুরি। সেগুলির মধ্যে হাসপাতালে যাতায়াতের মূল গেট ও তার অ্যাপ্রোচ রাস্তা নির্মাণ করা একান্ত প্রয়োজন। এছাড়াও ফুলের বাগিচা, পর্যাপ্ত আলো, নিরাপত্তা কর্মী এবং হাসপাতালের সার্বিক সৌন্দর্য্যায়নে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।এই সব কিছু নিয়েই  বিধায়কের কাছে অনুরোধ জানিয়েছি।’

বিধায়ক বুলু চিকবড়াইক বলেন, ‘এলাকা উন্নয়ন তহবিল থেকে বরাদ্দের জন্য বেশ কয়েকটি প্রকল্পের পরিকল্পনা ইতিমধ্যেই জেলাশাসকের দপ্তরে জমা দিয়ে রেখেছি। ওদলাবাড়ি গ্রামীণ হাসপাতালের দাবিগুলো অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক। চেষ্টা করব উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরের মাধ্যমে সেগুলি পূরণ করার।’

ছবি – ওদলাবাড়ি গ্রামীণ হাসপাতালের চিকিৎসা করাতে আসা রোগীদের ভিড়।

তথ্য ও ছবি- অনুপ সাহা