দৃষ্টির সীমাবদ্ধতা নিয়েও স্বনির্ভরতার স্বপ্ন বুনে চলেছেন শুভঙ্কর

108

চোপড়া: মানুষের দয়াতে নয়। বরং নিজের পায়ে দাঁড়াতে চান বিশেষভাবে সক্ষম শুভঙ্কর মাহাতো। বালুরঘাটের বাসিন্দা বছর ২৬-এর শুভঙ্কর বিধাননগর এলাকার একটি ব্লাইন্ড স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র। এখনও সেখানেই আবাসিক হিসাবে থাকেন তিনি। আর রোজগার করতে দোকানে দোকানে ধূপকাঠি ফিরি করেন। এদিন উত্তর দিনাজপুরের চোপড়াতে ধূপকাঠি বিক্রি করতে এসেছিলেন রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক শুভঙ্কর। চোখে আর চারজনের মতো স্পষ্ট দেখতে না পারলেও মনের মধ্যে স্বনির্ভরতার স্বপ্ন বুনে চলেছেন তিনি। ইতিমধ্যে ইউটিউব শুনে মোমবাতি, আগরবাতি, ফিনাইল তৈরির কৌশল আয়ত্ত করেছেন। সেইমতো কয়েকজন বন্ধু মিলে ধূপকাঠি বানিয়ে নিজেরাই বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে সেগুলি বিক্রি করছেন। এতে টুকটাক রোজগারও হচ্ছে।

শুভঙ্কর জানান, বাড়িতে বৃদ্ধ বাবা-মা রয়েছেন। বছর দুয়েক আগে ভিনরাজ্যে গিয়ে একটি কোম্পানির কাজে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু লকডাউনের সময় তিনি কাজ হারিয়েছেন। পরে বিধাননগরে ফিরে বন্ধুদের সঙ্গে মিলে ধূপকাঠি বানিয়ে বাজারে বিক্রির এই উদ্যোগ নিয়েছেন। পাশাপাশি চলছে সরকারি চাকরি জোগাড়ের জন্য চেষ্টা। তবে কাজ যাই হোক না কেন সেকাজেই আত্মবিশ্বাসী শুভঙ্কর।

- Advertisement -