মর্গের সামনে আবর্জনার স্তূপ, দুর্গন্ধে ক্ষোভ

পঙ্কজ মহন্ত, বালুরঘাট : বালুরঘাট জেলা হাসপাতাল সংলগ্ন পুলিশ মর্গের সামনে দীর্ঘদিন ধরে জমছে আবর্জনা। যার জেরে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন মৃতের আত্মীয়পরিজন থেকে শুরু করে মর্গের কর্মীরা। মর্গের কর্মীদের অভিযোগ, গত দুই মাস ধরে মর্গের সামনে ফেলে রাখা হাসপাতালে আবর্জনা পরিষ্কার করা হয়নি। এখানে মূলত সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের ব্যবহৃত সরঞ্জাম ফেলে রাখা হচ্ছে। যা থেকে পরবর্তীতে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। যার ফলে মর্গের কাজ করতে যেমন অসুবিধা হচ্ছে, ঠিক তেমনি মৃতের আত্মীয়পরিজনদের যাতায়াতে সমস্যা হচ্ছে। এই বিষয়ে তাঁরা মৌখিকভাবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে অভিযোগ জানালেও এখনও পর্যন্ত কোনও সুরাহা হয়নি।

দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বাসিন্দাদের নানারকম চিকিৎসা হয়ে থাকে বালুরঘাট জেলা হাসপাতাল ও সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে। জেলা হাসপাতাল সংলগ্ন পুলিশ মর্গে দিনের পর দিন জমে চলেছে আবর্জনার স্তূপ। যদিও এই বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কোনও হেলদোল নেই বলে অভিযোগ করছেন মর্গের কর্মীরা। একাধিকবার এই বিষয়ে কর্তপক্ষের কাছে দরবার করলেও কোনও সমাধান মেলেনি। অন্যদিকে, মর্গের পাশে রাখা হয়েছে ছোট্ট একটি ডাস্টবিন। কিন্তু মর্গের কর্মীদের অভিযোগ সেই গাড়ি আবর্জনার ভারে উপচে পড়ছে। এমনকি মর্গের সামনের খোলা জায়গায় যেখানে সেখানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে ক্যারিব্যাগে মোড়া বর্জ্য পদার্থ। যার জেরে মৃতের আত্মীয়পরিজন থেকে শুরু করে মর্গের কর্মীদের বর্তমানে নাজেহাল অবস্থা। মর্গের ভেতরে ঢুকতে গিয়ে নাকে মুখে রুমাল চাপা দিয়ে আবর্জনা থেকে বেরোনো দুর্গন্ধ আটকানো যাচ্ছে না বলে তাঁরা জানান।

- Advertisement -

বালুরঘাট জেলা হাসপাতালের মর্গের কর্মী মহেন্দ্র জমাদার বলেন, এইসব আবর্জনা আগে ছিল না। কিন্তু এখন দেখছি নিত্যদিন আবর্জনা হাসপাতাল থেকে এখানে ফেলেই চলেছে। গত দুমাস ধরে এখানে ফেলে রাখা আবর্জনা পরিষ্কার করা হয়নি। ফলে এলাকায় প্রচণ্ড দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। যার জেরে মর্গে আমাদের কাজ করা অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমনকি মর্গে ময়নাতদন্তের পর মৃতদেহ আনতে গিয়ে এই আবর্জনার ফলে সৃষ্টি হওয়া দুর্গন্ধের কারণে মৃতের আত্মীয়পরিজনেরা ঘৃণায় দূরে সরে যাচ্ছেন। মর্গের ভেতরে যাতায়াত করতে গিয়ে আমাদের শ্বাসকষ্ট দেখা দিচ্ছে। আমরা ইতিমধ্যেই হাসপাতাল সুপার এবং মর্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসককে এই বিষয়ে জানিয়েছি। ময়নাতদন্তের পর মৃতদেহ নিতে আসা এক আত্মীয় মুকুল হেমরম জানান, মর্গের সামনে থাকা একটি গাছতলায় ময়নাতদন্ত হয়ে যাওয়ার পর মৃতদেহ সংগ্রহের জন্য অপেক্ষা করছিলাম। কিন্তু প্রচণ্ড দুর্গন্ধের দাপটে সেখানেও বসে থাকা দায় হয়ে দাঁড়িয়েছিল। যার ফলে আমরা মর্গের থেকে অনেক দূরবর্তী স্থানে গিয়ে অপেক্ষা করছিলাম।

এই বিষয়ে বালুরঘাট জেলা হাসপাতালে দায়িত্বপ্রাপ্ত সুপার অপূর্বকুমার মৃধা জানান, পুলিশ মর্গের সামনের আবর্জনা নিয়ে আমাদের চিন্তা রয়েছে। মাঝেমধ্যেই ওই এলাকাতে সাফাই অভিযান চালানো হয়। কিন্তু গত কয়েকদিনে পরিষ্কার করার কাজ বন্ধ ছিল। ফলে কিছু আবর্জনা জমে উঠছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফে নিয়মিত মর্গের সামনে আবর্জনা পরিষ্কার করার পদক্ষেপ করা হয়। আমরা ইতিমধ্যেই অনেকটা আবর্জনা পরিষ্কার করে ফেলেছি। পাশাপাশি, সংশ্লিষ্ট সাফাইকর্মীদের খবর দিয়ে আগামী দুই থেকে তিনদিনের মধ্যেই বাকি আবর্জনা পরিষ্কার করার চেষ্টা করা হচ্ছে।